Home » অনুষ্ঠান » বাংলাদেশের ছবিবিহীন কলকাতা উৎসব  
kolkata-festival

বাংলাদেশের ছবিবিহীন কলকাতা উৎসব  

Share Button
মিডিয়া খবর:-
এটা নিতান্তই অবহেলা ছাড়া আর কিছু নয়, এত কাছের শহর, ভাষাগত, সংষ্কৃতিগত এত মিল, দু দেশের শিল্পী কবি নির্মাতা সহ সকল ক্ষেত্রে এত ভাল সম্পর্ক তারপরও এমনটা ভাল চেখে দেখছেননা এ দেশের সাংষ্কৃতিক জগতের মানুষেরা। ২০ বছরে ইতিহাসে এই প্রথমবার বাংলাদেশ বঞ্চিত হল। মমতা ব্যানার্জির বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ থেকে এ বঞ্চনার উপহার দেয়া হল এবার বাংলাদেশকে ।
পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে যে চলচ্চিত্র উৎসব হচ্ছে সেখানে আরও ৬০টি দেশের ১৩৭টি পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা দেখানো হলেও বাংলাদেশের কোনো ছবি নেই। কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ২০তম উৎসবে এই প্রথমবার ঢালিউডের ছবি নেই। প্রশ্ন উঠেছে, এক বছর আগেও গেরিলার মতো ছবি যে উৎসবে সেরা পুরস্কার পায় সেখানে এবার একজন ঢালিউড ছবির নির্মাতা নেই কেন? তবে কি ইচ্ছা করেই ঢাকার কোনো ছবি নির্মাতার নাম এবার কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে নথিভুক্ত করেননি? না কেউ আমন্ত্রণ জানায়নি?  নাকি বাংলাদেশের কোন ছবি উৎসবে  যাওয়ার মত যোগ্যতা অর্জন করেনি? মোট কথা হল, রোববার চলচ্চিত্র উৎসবের ছবির যে পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ হয়েছে সেখানে বাংলাদেশের কোনো ছবি নেই।
উদ্বোধনী মঞ্চে ১০ নভেম্বর কলকাতার নেতাজি ইন্ডোরে অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান, ঐশ্বর্য রাই বচ্চন, অভিষেক বচ্চন, জয়া বচ্চন, দীপিকা পাডুকোন, ইরফান খান, তনুজা। থাকবেন অস্ট্রেলিয়ান পরিচালক পল বক্সসহ বিশ্ব চলচ্চিত্রের প্রথিতযশা ৪০ জন পরিচালক ও শিল্পী। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ৪০ জন চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বসহ টালিউডের সাবেক ও নবাগত শিল্পীরা। বাংলাদেশ বাদ থাকলেও এবার উদ্বোধনেই দিল্লি বা গোয়ার চলচ্চিত্র উৎসবকে পেছনে ফেলে বাজিমাত করতে চাইছে কলকাতা। উদ্বোধনী মঞ্চে বিশ্ব সিনেমাকে ট্রিবিউট জানাবেন পণ্ডিত বিক্রম ঘোষ, রাশিদ খান, তেজেন্দ্রনারায়ণ মজুমদার এবং উষা উত্থুপ। হলি-বলি-টলির এমন সমাবেশেই হচ্ছে ২০তম আন্তর্জাতিক কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব। কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে এ বছরের উদ্বোধনী ছবি ইটালো বারোকো। ইতালির এই ছবিটি মুক্তি পেয়েছে চলতি বছরেই। শতবর্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হচ্ছে পরিচালক জে লি থম্পসন, রবার্ট ওয়াইসসহ বাংলার প্রখ্যাত পরিচালক অজয় করকে। প্রদর্শিত হবে তার পরিচালিত জিঘাংসা ছবিটি।
বিশেষভাবে সম্মান জানানো হবে প্রয়াত মহানায়িকা সুচিত্রা সেনকে। শিশির মঞ্চে প্রদর্শিত হবে তার অভিনীত ৭টি ছবি। একই সঙ্গে গগনেন্দ্র প্রদর্শনশালাতে মহানায়িকার ছবির প্রদর্শনী চলবে উৎসবের দিনগুলোতে। রেট্রোস্পেকটিভ-এ দেখানো হবে তাইওয়ানের প্রখ্যাত পরিচালক তাই মিং লিয়াং-এর ৮টি ছবি। এছাড়া ফোকাস-এ থাকছে আরবের দেশগুলোর ৮টি ছবি। ইন্ডিয়ান সিলেক্ট বিভাগে দেখানো হবে আঞ্চলিক ভাষায় তৈরি ১৪টি ছবি। এশীয় বিভাগে ৮টি দেশের প্রদর্শিত ছবি। শিশুদের জন্য চিলড্রেন স্ক্রিনিং বিভাগে রয়েছে ৪টি ছবি। বেঙ্গলি প্যানোরামা বিভাগে প্রথম পাঁচটি বাংলার ছবির ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হবে এ বছর উৎসবে। ফ্রেঞ্চ ক্ল্যাসিক বিভাগে ৫টি এবং কনটেমপোরারি ওয়ার্ল্ড সিনেমা বিভাগে ৪৬টি ছবি প্রদর্শিত হবে। ১৭ নভেম্বর সমাপ্তি অনুষ্ঠান হবে নজরুল তীর্থে। মঞ্চে থাকবেন পরিচালক ফারহা খান ও রানী মুখার্জি।

 

Check Also

bengal-classical-fest

শাস্ত্রীয়সঙ্গীত অনুষ্ঠান সূচি চতুর্থ দিন ২৭ নভেম্বর

মিডিয়া খবর :- দলীয় কত্থক নৃত্য : মুনমুন আহমেদ ও তার দল রেওয়াজ  তবলা : …

bengal-classical-utsav

শুরু হচ্ছে উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব

মিডিয়া খবর:- আজ থেকে শুরু হচ্ছে ‘বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব ২০১৬’। পঞ্চমবারের মতো আয়োজিত হতে যাচ্ছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares