Home » টিভি নাটক » নাটকের দর্শক নেই-দায় কার???
bangla natokimages

নাটকের দর্শক নেই-দায় কার???

Share Button

ঢাকা, ১লা এপ্রিল:- একজন দর্শকের আত্ববিশ্লেষণ

 

একটি অভিযোগ প্রতিনিয়ত শোনা যায় যে বাংলাদেশের নারীরা ভারতীয় বিশেষ কিছু চ্যানেলের নাটক দেখতে ব্যfস্ত থাকেন এবং নিয়মিত দেখেন। অন্যদিকে বাংলাদেশের নাটক দেখেন না বিষয়টি এমন ঢালাওভাবে না বলে নিগূঢ় ভাবে বিচার করে কারণগুলো অনুধাবন করলে এ অভিযোগটির প্রতি সুবিচার করা হবে। প্রথম খুঁজি কেন দেখি ভারতীয় সিরিয়াল?

প্রথমতঃ প্রতিদিন(সপ্তাহের ৫দিন) এক সময়ে একটি চ্যানেলে নির্দিষ্ট নাটকটি হয়। কারন চ্যানেলগুলোতে অন্যান্য অনুষ্ঠানের তুলনায় নাটকের আধিক্য বেশি মানে ওগুলো  নাটকের চ্যানেল। তাতে নাটকের দর্শকরা বিভ্রান্ত হন না।

দ্বিতীয়তঃ নাটকের মধ্যে পণ্যের বিজ্ঞাপনে আধিক্য না থাকা এবং বিরতির মধ্যে পরবর্তী নাটকের বিজ্ঞাপন দিয়ে মনে করিয়ে দেয় ইপ্সিত নাটকটি কখন হবে। অর্থাৎ কখনই ভুলতে দেয়না নাটকটি প্রচার সময়।

তৃতীয়তঃ বিজ্ঞাপনের আধিক্য নেই বলে কোন একটি নাটক দেখতে দেখতে একটি ইমোশন তৈরি হলে মস্তিকে বিষয়টি থেকে যাচ্ছে এবং দ্রুত বিজ্ঞাপন বিরতি থেকে নাটকে ফিরে যাওয়াতে যথার্থ আবেগ নিয়ে নাটকটি দেখছে।

চর্তুথঃ নির্মান যেমনই হোক না কেন নাটকের গল্প, সংলাপ, দ্বন্ধ অভিনয় প্রশংসার দাবিদার তা্ দর্শককে আকৃষ্ট করছে।

পঞ্চমতঃ দর্শক নাটক দেখে বিনোদিত হতে চায় সেদিক থেকে বিচার করলে বিনোদনের ঘাটতি নাই

অপর পক্ষে যদি বাংলাদেশের টিভি নাটকের দিকে তাকাই তাহলে দেখবো যে সব কারনে দর্শক হারাচ্ছে তার প্রথম কারণ হলো-

একটি নাটক দেখতে শুরু করলাম ভাল লাগছে বিজ্ঞাপন বিরতি শুরু হল দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষায় থেকে অবচেতনে চ্যানেল পাল্টে দিলাম মাথা থেকে নাটকের ইমোশন বেরিয়ে গেল ফিরে আসা হল না নাটকে।

দ্বিতীয়তঃ আমাদের চ্যানেলগুলো মিশ্র অনুষ্ঠান প্রচার করে-নানা অনুষ্ঠানের ভীড়ে নাটক স্বমহিমায় বিরাজ করলেও সপ্তাহে ২ দিন হয়ত কোন একটি নাটক প্রচার হত-নাটকটি দেখার যথেষ্ট ইচ্ছা থাকলেও সপ্তাহ্ ঘুরে নির্দিষ্ট দিনটিতে নির্দিষ্ট সময়ে নাটকটি দেখার কথা বেশিরভাগ দর্শকই ভুলে যান।

তৃতীয়তঃ নির্ধারিত সময়ের পরে নাটক শুরু হয়। বিজ্ঞাপন বিরতি দিয়ে প্রায়শ্৬-১০ মিনিট সময় ক্ষেপণ করা হয়।

চতুর্থতঃ নাটকের নির্মান যথেষ্ট ভালো হলেও গল্প, সংলাপ অনেক সময় দুর্বল হয় আবার সকল অভিনেতা সমান পারদর্শী না হওয়ার কারনণ নাটক দূর্বল হয়। অর্থাৎ পার্শ্চচরিত্র গুলির দক্ষতা বিচার না করে নাটকে সম্পৃক্ত করা হয় যেটি নাটকের মানের ক্ষেত্রে হুমকি স্বরূপ। অথবা যথেষ্ট পরিমান মহড়া হয়নি বোঝা যায়।

পঞ্চমতঃ ইদানিং বিরতিহীন নাটক বলে একধরনের নাটক শুরু হয়েছে। এটি বলে দেয় অন্য নাটকগুলো বিরতি প্রধান অর্থাৎ নাটক প্রধান নয় বিরতি প্রধান বা বিরতীহীন। যা হোক আমাদের নাটকের মান যথেষ্ট ভাল হওয়া স্বত্ত্বেও দর্শক টানতে পারছে না নানা কারনে। দর্শক ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব কার? টিভি কর্তৃপক্ষের? ডিরেক্টরের? লেখকের? অভিনেতার? যেখানে যার যতটুকু দায়িত্ব সেটি পালন করলে বোধ হয় দর্শক মনের ভুলেও নাটক দেখতে ভুলবেন না।

বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলের নাটকগুলো নির্মিত হয় দর্শকদের কথা মাথায় রেখে নয় বিজ্ঞাপন দাতাদের জন্য অথবা কর্তৃপক্ষের খেয়াল খুশি বা শুধু্ অনুষ্ঠান বাড়ানোর জন্য এর প্রমান মেলে নাটক প্রচারের বহর দেখলে যেমন ২১ শে টিভিতে একটি ধারাবাহিক নাটক দেখতে বসলাম নির্দিষ্ট সময়ের পরে নাটকটি শুরু হল নাটকের নাম কলাকুশলীদের নাম দেখানোর পর একটা দৃশ্য শুরু হল ২-৩ মিনিটের দৃশ্য, অবাক হলাম নাটকের কিছু বুঝে ওঠার আগে্ই বিজ্ঞাপন শুরু হল। আমার বক্তব্য হল দর্শক কেন দেখবে এ্ই নাটক, কেন বসে থাকবে পরবর্তী দৃশ্যের জন্য। এক্ই চ্যানেলে একটি ১ ঘন্টার নাটক প্রচার হচ্ছিল দেখছিলাম অর্ধেক প্রচারের পর চলে এল খবর প্রচারের দীর্ঘ বিরতি পাক্কা দেড় ঘন্টা পর নাটকের বাকী অংশ দেখার জন্য কষ্ট করে বসে থাকার দায় কি দর্শকের? আমার বোধগম্য নয় যথাযত কর্তৃপক্ষ্ই বলতে পারবেন কেন তারা নাটক প্রচার করবেন। দর্শকদের জন্য? বিজ্ঞাপন দাতাদের জন্য? না নিজেদের জন্য? দায় আসলে কার???

Check Also

shanti molom

আরটিভিতে আজ শা‌ন্তি মলম

মিডিয়া খবর :- দয়াল সাহা রচিত আর আই পি বিল্লাহ্ পরিচালিত নাটক শা‌ন্তি মলম আজ বৃহস্পতি বার ২৯ …

btv-52

৫৩-তে পা রাখলো বিটিভি

মিডিয়া খবর:- ৫২ বছর পেরিয়ে ৫৩-তে পা রাখলো বাংলাদেশ টেলিভিশন। দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল বিটিভির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares