Home » সঙ্গীত » আজ শনিবার শিল্পকলায় প্রাচ্যনাটের সার্কাস সার্কাস
sarkas sarkas

আজ শনিবার শিল্পকলায় প্রাচ্যনাটের সার্কাস সার্কাস

Share Button

ঢাকা:-

আজ শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যাশালার মূল হলে মঞ্চস্থ হচ্ছে প্রাচ্যনাটের সার্কাস সার্কাস, নাটকটি রচনা ও  নির্দেশনায় আছেন আজাদ আবুল কালাম।

প্রসঙ্গ: সার্কাস সার্কাস –

এ নাট্যের পটভূমি-ভিন্ন সময়ে ঘটে যাওয়া অভিন্ন চরিত্রের ঘটনাযুগল। দক্ষিণবঙ্গের বিখ্যাত সার্কাস দল লক্ষণ দাসের সার্কাস। সাং- বাটজোর, পোঃ- গৌরনদী, জিং- বরিশাল। দলের কর্ণধার লক্ষন দাস ঐ ছোট্ট বাটাজোর জনপদ ছাড়িয়েsarkas-sarkas.jpg-2 তার সুনাম দশ দিক ছড়িয়ে দিতে পেরেছিলেন তার মেধা, কর্ম আর দক্ষতার চোখ ধাঁধানো জৌলুসে। এক দিকে তার উত্থান আর এক দিকে  মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে-পাক বাহিনী তছনছ করে দিয়েছে একের পর এক লোকালয়, চারিদিকে আগুন দাউদাউ করে জ্বলছে। লক্ষন দাসও রক্ষা পেলেন না। এক প্রত্যুষে পাকিস্তানী সৈন্যদের হাতে শহীদ হলেন লক্ষন দাস। তার বসতবাড়ী, সার্কাসের সরঞ্জামাদি ভষ্মীভূত হলো। রক্ষা পেল না জীব জানোয়ারগুলো পর্যন্ত। লক্ষন দাসের হত্যাকান্ড সে সময়ের আর দশটা লৌকিক ঘটনার মত হলেও দিনে দিনে এক অলৌকিক প্রলেপ পেয়েছে দক্ষিনবঙ্গের জনপদ। অপর অঘটন সাম্প্রতিক কালের। বছর আষ্টেক আগে ‘সোনার বাংলা সার্কাস’ নামের একটি হতদরিদ্র দল যায় সমুদ্র তীরবর্তী শহর কক্সবাজার, মাসাধিককালের জন্য প্রদর্শনী হওয়ার কথা। শুরুতেই ক্ষীন স্বরে কিছু মুসলিম মৌলবাদী সংগঠন বাধ সাধে অসামাজিক কার্যকলাপের দোহাই দিয়ে। এই ক্ষীন সতর্কিকরণ আর্থিক চাঁদা দিবার শর্তে সুরাহা হয়, কিন্তু সার্কাস দল টাকার অংকটি বড় হবার কারণে তা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এবং যথারীতি তাদের প্রদর্শনী চলতে থাকে। একদিন গভীর রাতে অতর্কিতে নারায়ে তকবির ধ্বনি শোনা যায়, মূহুর্তে একদল মানুষ জেহাদি জোশে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঘুমন্ত সার্কাস দলের প্যান্ডেলে। মূহুর্তে সর্বত্র আগুন ধরে যায়। দাউদাউ করে জ্বলে খাঁচায় বন্দি জীব জানোয়ার, খেলোয়ার, ক্লাউন, লাঞ্ছিত হয় মেয়েরা রাতভর। ভোর হয়, ইতস্তত বিক্ষিপ্ত পড়ে আছে আহত-হত জীব-জানোয়ার মানুষ। আগুনের শেষ চিহ্ন, ধোঁয়ার কুন্ডলী আহাজারি আর পেক্ষাপটে সূর্যের ম্লান আলোর মধ্যে একে একে আসে আগুন নেভানো গাড়ি, প্রতিরক্ষী, পুলিশ, পাহারাদার, প্রশাসন, সাংবাদিক, মান্যিগন্যিগণ এই বহ্নি উৎসবে।
 
দু’টো বাস্তব ঘটনার প্রেক্ষাপটকে কেন্দ্র করে প্রাচ্যনাটের হাতে “সার্কাস সার্কাস” নাট্যের জন্ম।
এই নাট্যের কাহিনী এমনতর, ‘দি গ্রেট বেঙ্গল সার্কাস’ এককালে নামডাক ছিল প্রতিষ্ঠাতা লক্ষন দাসের কারণে। তার ভাই সাধন দাস কষ্টে সিষ্টে দলটিকে চালাচ্ছেন। মুক্তিযুদ্ধে যে দলটি নিঃস্ব হয়েছিল তাকে আবার একটু একটু করে সংগঠিত করে বিভিন্ন অঞ্চলে সার্কাস প্রদর্শনের ধারাবাহিকতায় একটি আমন্ত্রণে দলবল নিয়ে এসেছেন নবগ্রাম। দলের সমস্যার অন্ত নেই- খেলোয়ারেরা সবাই পারদর্শী এমনটা বলা যাবে না। খেলোয়ারদের মধ্যকার ব্যক্তিগত সম্পর্কের টানাপোড়নে সবাই তটস্থ। শুরুতে কিছু মৌলবাদী সংগঠন সার্কাস প্রদর্শনে বাধ সাধে ধর্মের-সামাজিক দোহাই দিয়ে। সাধন দাস বিপাকে পড়ে যান কিন্তু পূর্ব শিক্ষা তাকে যেমন সংশয়ী তেমনি আবার করেছে নিঃশংকচিত্ত। মুখোমুখি হয় দুটো পক্ষ। এর মাঝে বিভিন্ন দিক থেকে আসতে থাকে একের পর এক সাবধান বাণী, চারিদিকে সবাই যেন তাকে ভয় দেখায়। এমনকি দলের খেলোয়াররা পর্যন্ত। দলের একটি মেয়ে নিখোঁজ হয়।
মা বাঘটি ধীরে ধীরে নিস্তেজ হয়ে পড়ছে যেন। যাদের কথায় দলটি প্রত্যয় পাবে আশা করে তারা শুধু কথার আশ্বাসে ভোলায়। এমনি এক অনিশ্চয়তার মাঝ খানে মুসলিম মৌলবাদী সংগঠনটি গভীর রাতে হামলা চালায়। আগুন ধরিয়ে দেয় প্যান্ডেলে। একে একে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে তিন জন খেলোয়ার। আগুনে পুড়ে মারা যায় জীব-জানোয়ার, ভষ্মিভূত হয় দি গ্রেট বেঙ্গল সার্কাসের সমুদয় সম্পদ। সেই ধোঁয়ার কুন্ডুলীর মাঝেও কেউ একজন খুঁজে ফেরে সন্তান সম্ভাব্য বাঘটিকে। পুরো উপাখ্যানটি একটি অতীতকালে ঘটে যাওয়া ঘটনা।

কুশীলব –
সাখাওয়াত হোসেন রেজভী : আদবা, বাদক, ক্লাউন, পশু ডাক্তার, নেতা-২
জাহাঙ্গীর আলম : পুলিশ, বাদক
এ. বি. এস জেম : নারায়ন, গ্রামবাসী, বাদক
শতাব্দী ওয়াদুদ : আয়নাল মাস্টার, গ্রামবাসী, ডি. সি.
শাহনাজ জেরিন সাত্তার : সুলতানা
সানজিদা প্রীতি : বেবী. গ্রামবাসী, ডি.সি. পত্নী
পারভিন সুলতানা কলি : ডলি, সামসু, গ্রামবাসী
ফরহাদ হামিদ :টাইগার
রফিকুল ইসলাম : লায়ন
জগন্ময় পাল  : তাম্বু, নেতা-৩
শাহরিয়ার ফেরদৌস সজীব : পুটু, গ্রামবাসী
মোস্তাক আহমেদ টিটু    :নবারুন, ক্লাউন
আল-আমিন খন্দকার    : ছেলেটি, মোসলেম
আজাদ আবুল কালাম    : সাধন দাস
আসলামুজ্জামান পলাশ : চক্রধর
তপন মজুমদার : যুবক, ক্লাউন
শাহেদ আলী সুজন :লোকটি, নেতা-১
হীরা চৌধুরী : সামসু
sarkas-sarkas.jpg-1

Check Also

oishi-ashik

ঐশী ও আশিক গাইবেন আজ

মিডিয়া খবর:- জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী ঐশী ও আশিক সরাসরি গাইবেন বৈশাখী টেলিভিশনে। ৬ জানুয়ারি শুক্রবার রাত ১১টায় বৈশাখী টেলিভিশনের …

bakir-fasol

জুয়েল মোর্শেদ ও মমর বাকির ফসল

মিডিয়া খবর:- সংগীতশিল্পী  মাহফুজা মমর ‘বাকির ফসল’ গানটির মিউজিক ভিডিও ইউটিউবে গত ৩০ ডিসেম্বরে প্রকাশিত হয়েছে। …

One comment

  1. খুবই ভালো নাটক…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares