Home » মঞ্চ » গঙ্গা-যমুনা নাট্যোৎসব

গঙ্গা-যমুনা নাট্যোৎসব

Share Button

ঢাকা:-

 নয় দিনব্যাপী গঙ্গা-যমুনা নাট্যোৎসব  আয়োজন শুরু হচ্ছে আজ। বাংলাদেশ ও পশ্চিম বাংলার অভিন্ন সংস্কৃতি এবং মৈত্রীর বন্ধন দৃঢ় করার লক্ষ্যে আয়োজিত ‘গঙ্গা-যমুনা নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব’। তৃতীয়বারের মতো আয়োজিত এ উৎসবের নাম নির্বাচন করা হয়েছে অভিন্ন শিকড়ের আদলে।

আজকের আয়োজনের মধ্যে রয়েছে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের নাটক ‘নাম গোত্রহীন’, প্রদর্শিত হবে একাডেমির মূল থিয়েটার হলে। উর্দু ভাষার খ্যাতিমান লেখক সাদাত্ হাসান মন্টোর ‘কালি ও সিলোয়ার’, ‘লাইসেন্স’ ও ‘হাতাক’ এ তিন ছোটগল্পকে সমন্বয় করে নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন উষা গাঙ্গুলি। অভিনয় করেছেন সারা যাকের, অপি করিম, শ্রেয়া সর্বজয়া, মোস্তাফিজ শাহীনসহ অনেকে। সারা যাকের বলেন, ‘দেশ-সময় পরিবর্তন হলেও নারীর ওপর বিধিনিষেধ কিংবা তার আপন গল্পের পট কিন্তু পাল্টায় না। বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল কিংবা মিয়ানমার হোক, উপমহাদেশে নারীদের মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য নেই। তাই আমাদের যখন এ উৎসবের জন্য ডাকা হলো, তখন এ নাটককেই বেশি সামঞ্জস্য মনে হয়েছে।’

এদিকে পরীক্ষণ হলে অনুষ্ঠিত হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যকলা বিভাগের প্রযোজনায় নাটক ‘হ্যামলেট’। উইলিয়াম শেক্সপিয়ারের নাটকটি অনুবাদের কাজ করেছেন শামসুর রাহমান। আশিকুর রহমান লিয়নের নির্দেশনায় এ নাটক মঞ্চে আনছেন এ বিভাগের শিক্ষার্থীরা। নাটকের নির্দেশক ও নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক আশিকুর রহমান লিয়ন বলেন, ‘এটি ছিল আমাদের পরীক্ষণ নাটক। এডওয়ার্ড এম কেনেডি সেন্টারের সহযোগিতায় নাটকটি নিয়মিত প্রদর্শনীর অংশ হিসেবে গত জুলাইয়ে শিল্পকলায় মঞ্চস্থ হয়েছিল। সে সময় নাট্যব্যক্তিত্ব থেকে শুরু করে দর্শকদের ভালো সাড়া পায় হ্যামলেট। তখনই আমাকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল গঙ্গা-যমুনা নাট্যোৎসবে নাটকটি করার জন্য।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। বিশেষ অতিথি থাকবেন আইটিআই সভাপতি রামেন্দু মজুমদার, নাট্যজন মামুনুর রশীদ, আইটিআই বাংলাদেশ কেন্দ্র সভাপতি নাসির উদ্দিন ইউসুফ, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী এবং কলকাতার নাট্যজন ডলি বসু। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন উৎসব সদস্য সচিব আক্তারুজ্জামান এবং সভাপতিত্ব করবেন উৎসবের আহ্বায়ক গোলাম কুদ্দুছ। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান হবে।

৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলা উৎসবে মঞ্চায়ন হবে জয়যাত্রার যাত্রাপালা ‘টিপু সুলতান’, নৃত্যাঞ্চলের ‘রায়-কৃষ্ণ পদাবলী’, আগন্তুকের ‘অন্ধকারে মিথেন’, আরণ্যকের ‘স্বপ্নপথিক’, থিয়েটারের (বেইলি রোড) ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’, লোক নাট্যদলের ‘কঞ্জুস’, প্রাচ্যনাটের ‘সার্কাস সার্কাস’, আর্ট ইউনিটের ‘আমিনা সুন্দরী’, ঢাকা থিয়েটারের ‘ধাবমান’, অরিন্দম নাট্য সম্প্রদায়ের ‘কবি’ এবং মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়ের ‘প্রমিথিউস’। এছাড়া ভারত থেকে আসা চুপকথার ‘আত্মীয়স্বজন’, যুগাগ্নির ‘ঈশ্বর এসেছেন’ এবং অনীকের ‘একুশের গল্প’ নাটক প্রদর্শিত হবে এ উৎসবে। আরো থাকবে দুই বাংলার শিল্পীদের পথনাটক, আবৃত্তি ও গান পরিবেশনা।

Check Also

শিল্পকলায় মর্তের অরসিক

মিডিয়া খবর:- আজ শিল্পকলা একাডেমীর স্টুডিও থিয়েটার হলে সন্ধ্যা ৭ টায় মঞ্চায়িত হবে বঙ্গলোকের দ্বিতীয় …

আজ নাটক কঞ্জুসের ৬৯০ তম মঞ্চায়ন

মিডিয়া খবর :- ৭০০ তম মঞ্চায়নের পথে এগিয়ে চলেছে হাসির নাটক কঞ্জুস। আজ নাটকটির ৬৯০ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares