Home » চলচ্চিত্র » উড়ন্ত জলিলের মোস্ট ওয়েলকাম ২, শাকিব এর জগাখিচুড়ি হিরো দা সুপারস্টার
kobi-x-kabya

উড়ন্ত জলিলের মোস্ট ওয়েলকাম ২, শাকিব এর জগাখিচুড়ি হিরো দা সুপারস্টার

Share Button

ঢাকা:-

-: কবি ও কাব্য :-

বহু বছর পর প্রিয় নন্দিতার সান্নিধ্য গেলাম । যে ”নন্দিতা”র কাছে প্রতি সপ্তাহে অন্তত একদিন না গিয়ে থাকতে পারতাম না । এবার তাই ২ সপ্তাহে ২ বার গেলাম । প্রথমবার গেলাম শাকিবের ”হিরো দা সুপারস্টার” দেখতে আর ২ বার গেলাম স্যার (দুর্যো’দার দেয়া উপাধি) অনন্ত জলিল এর ”মোস্ট ওয়েলকাম ২ ” দেখতে । ২ টা ছবি দেখে পুরো পাঙ্খা হয়ে গেছি যার অনুভুতি নিম্নে সংক্ষেপে তুলে ধরলাম ।

প্রথমে আসি অনন্ত জলিলের ছবি প্রসঙ্গে । অনন্ত জলিলের কোন ছবি এর আগে আমি হলে দেখি নাই। তবে এবার ”মোস্ট ওয়েলকাম ২ ” দেখলাম । দেইখা চিন্তা করতেছি হলিউডের ”সুপারম্যান”, most-welcome”স্পাইডারম্যান” ”ব্যাটম্যান” কিংবা ”আয়রনম্যান” কোন ম্যানই আমাদের অনন্তের উড়ার কাছে কিছু না । পাশে বসা এক বন্ধুর কথা ” জিপির সবটুকু থ্রিজি বোধ হয় অনন্তের পাছা দিয়া ঢুকাইছে এইজন্য হালায় খালি আসমানে উইঠা যায় ” ছবির পোস্টার ও টাইটেল ছাড়াও উড়ন্ত অনন্তকে দেখে ” Powerd by Grameen Phone” লিখাটার সার্থকতা খুঁজে পাওয়া যায় । বন্ধুর কথা হয়তো ঠিক তাই জিপির সব থ্রিজি অনন্তের পেছনে গেলে কাস্টমার কি পাবে তা কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি । বঙ্গদেশের বিজ্ঞানী সোহেল রানা ক্যান্সারের নির্মূলের ওষুধ আবিস্কার করেছেন তাও আবার যেনতেন ক্যান্সার নয় ছোঁয়াচে ক্যান্সার রোগের ওষুধ যা আবিস্কার করে দর্শকদের মতো সোহেল রানা’র নিজেরও ”মাইরালা , আমারে মাইরালা” অনুভুতি মনে হয়েছে কিন্তু ভদ্রতার খাতিরে তা চেপে রেখেছেন,হাজার হোক অনন্ত স্যারেরর ছবি বলে কথা । বিজ্ঞানী সোহেল রানাকে দেখে মনে হলো আমি আইনস্টাইন, নিউটন’কে দেখেনি আমি দেখেছি বিজ্ঞানী হাসান মইন যার কাছে ওরা কিচ্ছু না । সোহেল রানা সংবাদ সম্মেলন করছেন আর বাহিরে জলিল সাব উইরা উইরা ভিলেনদের নাস্তানাবুদ করছেন যারা সোহেল রানার ফর্মুলা কেড়ে নিতে চায় । ছবিতে নায়কের আগমনে হলভর্তি দর্শক তালি দেয় তা জানতাম কিন্তু এইবার প্রথম জানলাম নায়কের আগমনে দর্শক হাসে । নায়ক যতবার পর্দায় আসে দর্শক ততবার হেসে উঠে যেন বঙ্গের হাসির ওষুধের নাম ”জইল্লা” সিরাপ । দর্শকের হাসির শব্দে পর্দায় দিলদার’কে খুঁজতে লাগলাম , নাহ, কোথাও প্রিয় সেই দিলদার নেই , নেই কোন কমেডিয়ান । তাহলে দর্শক এতো হাসে ক্যান? এই প্রশ্নের জবাব খুঁজে পাবেন স্যার অনন্ত জলিল পর্দায় এলে । পুলিশ সদস্য হইতে বুকের মাপ কয় ইঞ্চি লাগে কেউ জানেন ? অনন্তের বিশাল বক্ষ সেই প্রশ্ন মনে জাগায় বারবার । সেই বক্ষের আঘাতে বড় বড় গাড়ী উইরা উইরা বিস্ফোরিত হয় । এখন আগামীতে পুলিশে যোগ দেয়ার আগ্রহীপ্রার্থীদের শর্ত হিসেবে যদি ” প্রার্থীকে অনন্ত সাইজ বক্ষ বা বুকের মাপ হইতে হবে ” তাহলে গোপালী পুলিশের কপালে দুঃখ আছে ভেবে মনটা খারাপ হয়ে গেলো । খিঁচুনি ক্যান্সার, কল্লানাড়া ক্যান্সার নামক যে দুই প্রকাশ ক্যান্সার রোগ আছে সেটাও জানলাম ছবিতে ক্যান্সার রোগীদের দেখে । একেই বলে জলিলের কারিশমা !!! আমাদের বাকশালি সরকারে যেমন ”তথ্যবাবা” আছে তেমনি ছবি ভিলেন নিনো’র (টাটা নেনো গাড়ী ভেবে ভুল করবেন) তেমনি একজন তথ্যবাবা আছে যিনি নিনোকে সব তথ্য দিয়ে সাহায্য করেন। বাকশালি সরকার যেমনি জনগনের মুখের ভাষা কেড়ে নিতে চায় তেমনি ভিলেন নিনো ও তার দলবল সোহেল রানার কাছ থেকে ক্যান্সারের ভ্যাকসিন কেড়ে নিতে পাগল ছবিতে বাস্তবতার মিল এইটুকুই বলতে পারেন ।
পুরো ছবি জুড়ে ছিল ষ্টীল পিকচার দিয়ে এফেক্ট (ক্রোমা) ও বিদেশি ছবির কাটপিসে ভরা । বিশেষ করে মারামারির দৃশ্যগুলো বিদঘুটে লেগেছে । এটা যদি হয় অ্যাকশন দৃশ্য নতুনত্ব তাহলে বলার কিছু নাই । অনন্ত সাহেব কেন নায়ক হিসেবে অভিনয় করেন তা বারবার মনে জাগে। মাঝে মাঝে মনে হয়েছে অনন্তের জায়গায় ডিপজল অভিনয় করেলও অনেক ভালো হতো । বাংলা ছবিকে আধুনিক ও মান্সম্পন্ন করার চেষ্টার জন্য অনন্তকে ধন্যবাদ দেয়া যায় কিন্তু ”মোস্ট ওয়েলকাম ২” আধুনিক ও মানসম্পন্ন নামে একটা বিটলামি বা ইয়ার্কি ছাড়া কিছুই নয় । ছবিতে ভালো লাগার মতো কোন গান পেলাম না যা শুনে নিজমনে গুনগুন করতে ইচ্ছে করে । ভাগ্য ভালো যে আমাদের অর্থমন্ত্রী সাহেব এই ছবি দেখার পরেও ”রাবিশ” বলে নাই এই জায়গায় অনন্তের পুরো কৃতিত্ব ।।

heroএবার আসি বাংলার খানে খানা শাকিব খান প্রযোজিত ‘হিরো দা সুপারস্টার ” ছবি প্রসঙ্গে । পরিচালক বদিউল আলম খোকন এর ছবি ”দানব”, ”রুস্তম” ছবিগুলো এর আগে আমার হলে দেখা । এরপর দীর্ঘ বিরতির পর দেখলাম শাকিবের এই ছবিটি । আগেই বলেছি সবসময় নায়কের আগমনে হল্ভরতি দর্শক তালি দেয় সেই ফর্মুলায় শাকিব আসা মাত্র দর্শকদের করতালি যা বাস্তবে কোন মন্ত্রী এমপির জনসভায় ভাড়া করা লোকেরাও এতো তালি দেয় না । ছবিতে শাকিব একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ও নরম হৃদয়ের মানুষ যার নাম হীরা । যিনি অপুর সাথে ফষ্টিনষ্টি থুক্কু রোমান্স করে বেড়ান । দর্শক কিছু বুঝে উঠার আগেই কয়েকটি খুন খারাপি হয় যারা ছিল মিশা সওদাগরের লোক । আবারো পাশের বন্ধুটির কথা ” কিতা বে? কিতা দেখরাম? ” । বন্ধুর প্রশ্নে উত্তরে বললাম ” জানিনা, দেখতে থাক ”। আবার এই বন্ধুই কিছুক্ষন পর পর ”ঐ, এটা আমি আগে দেখসি” বলে বিরক্ত করতে লাগলো । বন্ধুটির এই ”আগে দেখসি ,আগে দেখসি” বলার কারনে পরে আসছি । তার আগে আরও কিছু কথা বলি । শাকিব খান প্রযোজক হিসেবে চেষ্টা করেছেন দর্শকদের বিনোদন দেয়ার যা তিনি সফল । পুরো ছবি জুড়ে ছিল অনন্তের ছবির মতো ওয়ান ম্যান শো তবে অনন্তের মতো বিরক্তিকর লাগেনি । মিশার অভিনয় ছিল দারুন এবং কিছু কিছু জায়গায় শাকিবের চেয়ে মিশাকে ভালো লেগেছে । আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা অনেক উন্নতি করছে ছবিটি দেখে সেটাই মনে হবে । এই ছবির গোয়েন্দা সদস্যদের সাগর রুনি হত্যা মামলা সহ নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হোক এটা আমার দাবী । ছবিতে অপুকে দারুন লেগেছে তবে আমার লুল মন ববিরে পছন্দ করছে । বারবার শুধু ববির কাছে মনটা ছুটে যায় । গানের দৃশ্য লোকেশনগুলো খুব ভালো লেগেছে । বিনোদনধর্মী হিসেবে ছবিটা ১০০ তে ১০০ । তবে বদিউল আলম খোকন এর ‘জগাখিচুড়ি” বানানোর অভ্যাস বাদ দিতে হবে । যার কারনে আমার বন্ধুর বারবার ”দেখসি, দেখসি’ বলে চিল্লায় উঠছে । কারন সে এই ছবির সাথে তেলেগু নায়ক ও রেবেল ছবির পুরো মিল পেয়েছে যে ছবি দুটো মিলিয়ে তৈরি হয়েছে শাকিবের জগাখিচুড়ি ” হিরো দা সুপারস্টার” । শাস্তিসরূপ ”নকল দেশ জাতির জন্য অভিশাপ” এই রচনাটি বদিউল আলম খোকনকে ১০০ বার লিখতে দেয়া হোক ।।

সব কথার শেষ কথা প্রিয় বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সিনেমার জয় হোক এটাই একমাত্র চাওয়া ।

Check Also

nuru miah o tar beauty driver

নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার

মিডিয়া খবর :- গত ২৪ জানুয়ারি কোনও কর্তন ছাড়াই বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায় …

tanha, shuva

ভাল থেকো চলচিত্রের পোস্টার প্রকাশ

মিডিয়া খবর:- প্রকাশ হল জাকির হোসেন রাজুর নির্মিতব্য চলচিত্রের পোস্টার। জাকির হোসেন রাজুর নির্মাণে আসছে নতুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares