Home » চলচ্চিত্র » অগ্রপথিক জহির রায়হান আছেন থাকবেন
jahir-raihan

অগ্রপথিক জহির রায়হান আছেন থাকবেন

Share Button

ঢাকা:-

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের অগ্রপথিক জহির রায়হান আছেন থাকবেন, হৃদয়ে আমাদের।  ১৯৩৫ সালের ১৯ আগস্ট বর্তমান ফেনী জেলার অন্তর্গত মজুপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

জহির রায়হান একজন প্রখ্যাত বাংলাদেশী চলচ্চিত্র পরিচালক, ঔপন্যাসিক, এবং গল্পকার। জহির রায়হান  ১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর তিনি তার পরিবারের সাথে কলকাতা হতে বাংলাদেশে (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) স্থানান্তরিত হন। তিনি ১৯৫৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে বাংলায় স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে দু’বার বিয়ে করেন: ১৯৬১ সালে সুমিতা দেবীকে এবং ১৯৬৬ সালে তিনি সুচন্দাকে বিয়ে করেন, দুজনেই ছিলেন সে সময়কার বিখ্যাত চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। বাংলার এই উজ্জ্বল নক্ষত্রকে স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের ৩০শে জানুয়ারী নির্মম ভাবে হত্যা করে পাকিস্তানীদের ফেলে যাওয়া দোসর বিহারীরা। তার অন্তর্ধানের দীর্ঘ আঠাশ বছর পর্যন্ত তাকে অপহরন করে গুম করে ফেলার খবর প্রচার করা হয়। কিন্তু পহেলা সেপ্টেম্বর ১৯৯৯ দৈনিক ভোরের কাগজের এক রিপোর্টে বেরিয়ে আসে জহির রায়হান খুনের আসল রহস্য। জাহির রায়হানের ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারের মেয়ে শমী কায়সার

১৯৫২ সালের ২০শে ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় ১৪৪ ধারা জারী করা হয়, উদ্যেশ্য ২১শে ফেব্রুয়ারীর হরতালকে পন্ড করা। ছাত্ররা সেদিন রাষ্ট্র ভাষা উর্দু করার ষড়যন্ত্রকে ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করেছিলো। ২০শে ফেব্রুয়ারীর রাতেই ফজলুল হক হল, ঢাকা হল ও সলিমুল্লাহ হলের ছাত্ররা মিটিং করে জানিয়ে দিলো যে সরকার রক্ত চক্ষু দেখিয়ে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করতে চাইলে তারা একতিলও ছাড় দিতে রাজী নয়, তারাও গর্জে উঠতে জানে, চেলেঞ্জ ছুড়ে দিলো “তবে হয়ে যাক ফয়সালা”। মুসলীম লীগের পান্ডারা ও একালার সর্দারেরা মহল্লায় মহল্লার স্কুলে স্কুলে গিয়ে ভয় দেখিয়ে এলেও একুশে ফেব্রুয়ারী সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট পালিত হয়। রাজনৈতিক নেতাদের নির্দেশ অমান্য করে ছাত্ররা ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে রাস্তায় মিছিল বের করার সিদ্ধান্ত নেয়। সর্বপ্রথম যেই দশ জন ছাত্র মিছিল বের করেছিলেন তাদের একজনের নাম “জহির রায়হান”। তার বাল্যকাল অতিবাহিত হয় কলকাতায়।তার স্মরণে চানখাঁর পুল থেকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে পলাশীগামী সড়কটির নাম রাখা হয়েছে জহির রায়হান সড়ক।তাঁর আসল নাম মোহাম্মদ জহিরুল্লাহ।

ভাষা আন্দোলনের পটভুমিতে জহির রায়হানের লেখা “একুশে ফেব্রুয়ারী” ও “আরেক ফাল্গুন” নামক উপন্যাস দুটি তার অনবদ্য রচনা। এছাড়াও উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলীর মধ্যে রয়েছেঃ সূর্যগ্রহণ, শেষ বিলেকের মেয়ে, হাজার বছর ধরে, আর কতদিন, কয়েকটি মৃত্যু, বরফ গলা নদী, তৃষ্ণা প্রভৃতি।নিঁপুন দক্ষতার সহিত চলচিত্র নির্মাণ শিল্পেও তিনি খুব অল্পসময়ে নিজেকে বিকশিত করেন। তার নির্মিত মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক প্রামান্য চিত্রগুলো যুদ্ধকালীন সময়ে বিশ্বমানবতার টনক নাড়িয়ে দেয়। জহির রায়হানের নির্মিত চলচিত্রগুলো হলোঃ কখনো আসেনি (১৯৬১), সোনার কাজল (১৯৬২), কাঁচের দেয়াল(১৯৬৩), সংগ্রাম (১৯৬৪ ততকালীন পাকিস্তানের সর্বপ্রথম রঙিন চলচিত্র), বাহানা (১৯৬৫), বেহুলা (১৯৬৬), আনোয়ারা (১৯৬৬), দুইভাই (১৯৬৮), জীবন থেকে নেয়া (১৯৬৯) ও ইংরেজী ভাষায় Let There Be Light। ১৯৫৫ সালে তাঁর প্রথম গল্পগ্রন্থ সূর্য গ্রহণ ও ১৯৬০ সালে প্রথম উপন্যাস শেষ বিকেলের মেয়ে প্রকাশিত হয়।

পেশাগত জীবনে তিনি সাংবাদিকতা ও চলচিত্র সাংবাদিকতার সাথে সরাসরি জড়িত ছিলেন। ১৯৫০ সালে “যুগের আলো” পত্রিকা দিয়ে তিনি সাংবাদিকতার সাথে যুক্ত হন ও পরবর্তীতে বিভিন্ন পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেন। উল্যেখ্য ১৯৫৬ সালে প্রবাহ পত্রিকায় জহির রায়হান সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।১৯৬৪ সালে তিনি পাকিস্তানের প্রথম রঙিন চলচ্চিত্র সঙ্গম নির্মাণ করেন (উর্দু ভাষার ছবি) এবং পরের বছর তার প্রথম সিনেমাস্কোপ চলচ্চিত্র বাহানা মুক্তি দেন। জহির রায়হান ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন এবং ২১শে ফেব্রুয়ারির ঐতিহাসিক আমতলা সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন। ভাষা আন্দোলন তার ওপর গভীর প্রভাব ফেলেছিল, যার ছাপ দেখতে পাওয়া যায় তার বিখ্যাত চলচ্চিত্র জীবন থেকে নেওয়াতে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি কলকাতায় চলে যান এবং সেখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে প্রচারাভিযান ও তথ্যচিত্র নির্মাণ শুরু করেন। সে সময়ে তিনি চরম অর্থনৈতিক দৈন্যের মধ্যে থাকা সত্ত্বেও তার চলচ্চিত্র প্রদর্শনী হতে প্রাপ্ত সমুদয় অর্থ তিনি মুক্তিযোদ্ধা তহবিলে দান করে দেন।

নব্বইয়ের শেষ দিকে আবেদ খান ‘‌ঘটনার আড়ালে’ নামে একটা অনুষ্ঠান করতেন বিটিভিতে। ‘৯৮ সালের মার্চে একটি এপিসোড ছিল ‘‌একাত্তরের দুঃসহ স্মৃতি’ নামে। বিভিন্ন ভুক্তভোগীর বয়ানে উঠে এসেছিল রাজাকার-আলবদরদের যুদ্ধকালীন নৃশংসতা। গোলাম আযমসহ জামাত নেতারা আবেদ খান ও অনুষ্ঠান সহযোগীদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করে বসেন। তাদের দাবি ছিল তারা একাত্তরে মোটেও এ ধরণের কুকর্মে জড়িত ছিলেন না। চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান সাধারণ মানুষ ছিলেন না। কমিউনিস্ট ভাবাদর্শে পরিপুষ্ট এই মানুষটি ছিলেন যেমন প্রতিভাধর, তেমনি একরোখা, সংগ্রামী, ঋজু চরিত্রের। সুতরাং অন্যান্য বামপন্থী শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মতো তিনিও যে লীগ সরকারের পছন্দের ব্যক্তি ছিলেন না, তা বলাই বাহুল্য। তিনি মূলত মধ্যবিত্ত জীবনের রূপকার। চারপাশের মানুষের সুখ-দুঃখ ও আনন্দ-বেদনার চিত্র তাঁর রচনাকে করেছে সমৃদ্ধ, চলচ্চিত্রে দিয়েছে প্রাণ। সমাজের নানা বৈষম্য ও অসঙ্গতির বিরুদ্ধেও তাঁর কণ্ঠ ছিল বলিষ্ঠ।

শেষ বিকেলের মেয়ে (১৯৬০) – রোমান্টিক প্রেমের এই উপন্যাসটি জহির রায়হানের প্রকাশিত প্রথম উপন্যাস।হাজার বছর ধরে (১৯৬৪) –আবহমান বাংলার জীবন ও জনপদ এই উপন্যাসের মূল উপজীব্য বিষয়। নদী তীরবর্তী প্রকৃতির কোলে উপন্যাসের পাত্র-পাত্রী বিকশিত। এর ভাষা কাব্যিক, গতিশীল ও সুখপাঠ্য। উপন্যাসের নায়িকা টুনি একমাত্র জীবন্ত চরিত্র, আর সবই যেন মৃত ও বিবর্ণ।আদমজী সাহিত্য পুরস্কার, ১৯৬৪ – হাজার বছর ধরে উপন্যাসের জন্য।একুশে পদক ১৯৭৭ -চলচ্চিত্র : মরণোত্তর । “জীবন থেকে নেয়া” – ছবিটা যতবার দেখি ততবারই নতুন লাগে। খুব অবাক লাগে যে চল্লিশ বছর আগে বানানো কাহিনীটি এখনো আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটের সাথে দারুণভাবে মানিয়ে যায়। সেই সময়টা ছিল পাকিস্তানীদের শোষণের সময়, আর এখন আমাদের নিজেদের লোকেরা আমাদের শোষণ করে।

স্পেন দেশের এক প্রবাদ আছে – ‘শৈশবের স্বপ্নকে অবহেলা করো না’ – জহির রায়হান ছিলেন ওই প্রবাদের একনিষ্ঠ সাধক। স্কুলে নিচের ক্লাসে পড়ার সময়েই প্রায়ই বোতাম থাকত না জন্যে একহাতে ঢোলা হাফপ্যান্ট কোমরের সঙ্গে ধরে রেখে ছাত্র ফেডারেশন ও কম্যুনিস্ট পার্টির আত্মগোপনকারী সদস্যদের মধ্যে চিঠিপত্র আর খবর আদানপ্রদানের কাজ করেছেন তিনি, খোলা রাস্তায় বিক্রি করেছেন কম্যুনিস্ট পার্টির মুখপত্র ‘স্বাধীকার’।প্রচণ্ড ও অহেতুক ভীড়ের মধ্যেও, প্রচুর আবর্জনা ও জঞ্জালের মধ্যেও জহির রায়হানের সাহিত্য ও চলচ্চিত্র (বিশেষত চলচ্চিত্র) শেষ পর্যন্ত একটি পরিণতি পেয়েছে। মুগ্ধতা ছাপিয়ে এক মগ্নতায় নিয়ে যায় তাঁর চলচ্চিত্র আর সাহিত্য স্বল্পপরিসরে হলেও মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষের নিরন্তর জীবনপ্রবাহ হিসেবে আমাদের আন্দোলিত করে।

সাংবাদিক হারুনুর রশীদ খান ৩০ জানুয়ারি ১৯৯৩ সালে দৈনিক লাল সবুজ পত্রিকায় একটি নিবন্ধ লিখেন জহির রায়হানের ওপর। এতে তিনি বলেছেন, ‘সেই যে নিখোঁজ হলেন, আজও আমাদের কাছে নিখোঁজ। রহস্যজনক ঘটনা আরো ঘটলো। জহির রায়হানের মরিস মাইনর গাড়িটি দরজা ভাঙা অবস্থায় পাওয়া গেল।’জহির রায়হানের মেজো সন্তান অনল রায়হানের অভিযোগ। তিনি অভিযোগ করেন, ‘জহির রায়হান নিখোঁজ হওয়ার পর আওয়ামী লীগ সরকার এক ভুয়া তদন্ত কমিটি গঠন করেছিলেন। এই কমিটি কোনো কাজ করেনি। মুক্তিযুদ্ধের প্যানপ্যানানি করে আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় এলো …মুজিব হত্যার বিচার হয়েছে। এই হত্যাকান্ড ঘটেছে ১৯৭৫ সালে। এর আগে জহির রায়হানসহ অনেক বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করা হয়েছে। কই তাদের তো বিচার হলো না।’স্বাধীন স্বদেশের মাটিতে নির্মল বাতাসে নি:শ্বাস ফেলতে চেয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক খ্যাতিমান সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান। সদ্য স্বাধীন দেশের রাজধানী ঢাকাতেই তিনি দিনের আলোতে হারিয়ে গেলেন।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে পাঁচটায় বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের চলচ্চিত্র ও চারুকলা বিভাগ আলোচনা সভা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী আয়োজন করেছে। আলোচনা সভার পর প্রদর্শিত হবে জহির রায়হানের জীবন নিয়ে উদীচী’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক সেন্টু রায় নির্মিত প্রামাণ্য চিত্র বয়ান “জহির রায়হান”।invitation

তথ্যসুত্রঃ

উইকিপিডিয়া
ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা – সৌমিত্র শেখর

Rajib noor – somewhere blog

Check Also

pagla-kanai

মরমী কবি পাগলা কানাইয়ের জন্মজয়ন্তী

মিডিয়া খবর :- মরমী কবি পাগলা কানাইয়ের ২০৭তম জন্ম দিবস আজ।  এ উপলক্ষে কবির মাজার …

nuru miah o tar beauty driver

নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার

মিডিয়া খবর :- গত ২৪ জানুয়ারি কোনও কর্তন ছাড়াই বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares