Home » চলচ্চিত্র » চলচ্চিত্রে নকল তত্ত্বের ভূত এবং গোড়ায় গন্ডগোল
bangla-film

চলচ্চিত্রে নকল তত্ত্বের ভূত এবং গোড়ায় গন্ডগোল

Share Button

ঢাকা:-

-: রেজওয়ান সিদ্দিকী অর্ণ :-

চলচ্চিত্র বা চলমান চিত্র যাই বলি না কেন এর একটা নিজস্ব সত্ত্বা এবং বৈশিষ্ট্য থাকা বাঞ্ছনীয়। কোন চলচ্চিত্রের যদি নিজস্বতা না থাকে সেটা আর যা হোক চলচ্চিত্র বলা চলে না, সেটিকে চলচ্চিত্রের নামে প্রহসন বলা চলে। আর এই প্রহসন কখনো একটি দেশের চলচ্চিত্রের জন্য ভালো কিছু বয়ে আনবে না। জন্মলগ্ন থেকে ঢাকাই চলচ্চিত্র যে নিজস্ব সত্ত্বা এবং বৈশিষ্ট্য নিয়ে পথচলা শুরু করেছিলো সেই পথচলা বর্তমানে এসে হুট করে থেমে গিয়েছে। নকলের আধিপত্যে তলানীতে এসে পৌছেছে। আমরা কখনো চাইবো না আমাদের সন্তান নকল করে পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করুক। কেননা আমরা জানি নকল করে পরীক্ষায় যতো ভালো ফলাফল করুক না কেনো সে কোনদিন মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবে না। আর মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে না পারলে তাকে আজীবন বাকা মেরুদন্ডের জীবন বেছে নিতে হবে যা কখনো কাম্য নয়। তেমনি আমরা চাই না আমাদের চলচ্চিত্র নকলের কাছে পরাজিত হয়ে নিজস্ব সত্ত্বা এবং বৈশীষ্ট্য হারিয়ে মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়ুক। কিন্তু ক্রমেই আমাদের চলচ্চিত্র অর্থ্যাৎ ঢাকার চলচ্চিত্র নকল গল্পের দাপটে মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়ছে। যা ঢাকাই চলচ্চিত্রের জন্য অশনী সংকেত বলা চলে। পার্শ্ববর্তী দেশের ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র ঢাকাই চলচ্চিত্রের পরিচালকরা হরহামেশাই নকল করছে। সংলাপ এবং গানের সুর পর্যন্ত বাদ পড়ছে না। এখানে পরিচালকদের এক তরফা দোষ দেয়া ঠিক হবে না। এক্ষেত্রে প্রযোজক অনেকাংশে দায়ী। অনেককে আবার গল্পকারকে দোষ দিতে শোনা যায়। প্রকৃতপক্ষে এখানে গল্পকারের কিছু করার নেই। প্রযোজকের চাহিদা মতো তাকে গল্প লিখতে হয়। তাই বাধ্য হয়ে তিনি মৌলিক গল্প একপাশে রেখে নকল গল্প লেখেন।

এবার আসি নকল গল্পে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলো ব্যবসা প্রসঙ্গে। প্রযোজক, পরিচালকরা যেখানে ব্যবসা করার জন্য নকল গল্পে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন সেখানে সে সব চলচ্চিত্রগুলো খুব যে ব্যবসা করছে তা কিন্তু নয় বরং নকলের মাঝে নিজস্ব সত্ত্বাকে টিকিয়ে রাখার জন্য হাতে গোনা যে ক’জন পরিচালক, প্রযোজক মৌলিক গল্পের চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন তাদের চলচ্চিত্র কিন্তু ভালো ব্যবসা করছে। প্রমাণ হিসেবে মনপুরা, থার্ড পার্সন সিঙ্গুলার নাম্বার, টেলিভিশন, মোল্লা বাড়ির বউ এর নাম উল্লেখ করা যেতে পারে। এছাড়া মৌলিক গল্পের আরো অনেক চলচ্চিত্র ব্যবসা সফল হয়েছে যেগুলোর নাম এই মূহুর্তে মনে আসছে না। অপরদিকে যেখানে নকল গল্পের কারনে ঢাকাই চলচ্চিত্র ক্রমেই পিছিয়ে পড়ছে সেখানে কয়েকটি টেলিভিশন চ্যানেল স্বল্প বাজেটে চলচ্চিত্র নির্মাণ করে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় ছোট পর্দায় ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ারের নামে সেগুলো মুক্তি দিচ্ছে। যার ফলে হল বিমুখ দর্শকরা আরো হল বিমুখ হয়ে ড্রয়িং রুম নির্ভর হয়ে পড়ছে। যেখানে বিনামূল্য ঘরে শুয়ে, বসে আরাম করে চলচ্চিত্র দেখতে পারছে সেখানে তাদের টাকা খরচ করে হলে যাওয়া প্রয়োজন থাকবে না এটাই স্বাভাবিক। এদিকে বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় ছোট পর্দায় মুক্তি পাওয়া চলচ্চিত্রগুলো লবিং এর মাধ্যমে জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছে। যে কারনে তারা আরো বেশী করে উৎসাহিত হচ্ছে ছোট পর্দায় মুক্তি দেয়ার উদ্দেশ্যে চলচ্চিত্র নির্মাণে। বরাবরই এসব চ্যানেল সংশ্লিষ্টরা ঢাকাই চলচ্চিত্রর উন্নয়নের কথা জোর গলায় বললেও আদৌ তারা চলচ্চিত্রের ক্ষতি ছাড়া উপকার করছে না। অপ্রিয় হলেও সত্য আমাদের গোড়ায় গন্ডগোল আছে। এই গোড়ায় গন্ডগোল যতোদিন ঠিক হবেনা এবং সেই সাথে নকলতত্ত্বের ভূত নামবে না ততোদিন ঢাকাই চলচ্চিত্র সত্ত্বা হারিয়ে বৈশিষ্ট্যহীন হয়ে পথ চলবে। এই পথচলা যদি দীর্ঘস্থায়ী হয় তাহলে এদেশের চলচ্চিত্র চিরদিনের জন্য মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়বে। এখনই সময় আপাততো স্বার্থের কথা চিন্তা না করে একত্রিত হয়ে চলচ্চিত্রের উন্নয়নে কাজ করা।

লেখক:- চলচ্চিত্রকর্মী

Check Also

রীনা ব্রাউন

মুক্তি পাচ্ছে রীনা ব্রাউন

মিডিয়া খবর:- আগামী ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার স্টার সিনেপ্লেক্স প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশে চলচ্চিত্র …

Nusrat-Faria

শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার ধ্যাৎতেরিকি

মিডিয়া খবর :-  সব প্রতিক্ষার অবসান শেষে এবার শুটিং শুরু হল আরেফিন শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares