Home » তথ্য প্রযুক্তি » বিষয় Networking : ( নেটওয়ার্কিং)
networking

বিষয় Networking : ( নেটওয়ার্কিং)

Share Button

কাজী আসিফ ইমতিয়াজ

( মিডিয়াতে নেটওয়ার্কিং শব্দটার পরিচিতি অনেক, যারা বিষয়টা বুঝতে চান তাদের জন্য আমার এই ধারাবাহিক লেখা )

পর্ব ১ :-

Network শব্দটির সাথে আমরা প্রায় সবাই কমবেশি পরিচিত। Network হলো এমন একটি System যেখানে সবাই মিলে তথ্য share করা যায় বা একসাথে কাজ করা যায়। যেমন ধরুন আপনি যখন কোন Bank এর ATM Booth ব্যবহার করেন, তখন ওই সংশ্লিষ্ট Bank-এর ATM Network-ই আপনি ব্যবহার করছেন।তাদের এই Network –এর আওতায় বিভিন্ন স্থানে ATM Booth গুলি স্থাপন করা হয়েছে। Bank গুলোর যদি এ ধরনের Network না থাকে তাহলে তারা এতো সহজে সবকিছু পরিচালনা করতে পারবে না।

দুটি Computer-কে যখন একটি Network-এ নিয়ে আসা হয় তখন আমরা প্রধান যে সুবিধা পাই তা হোল: দুটি Computer পরস্পরের resource Share করতে পারে। Resource বলতে এখানে তথ্য এবং Hardware Device দুটোই বোঝায়। Network-এর একটি PC-তে যুক্ত Hardware Device, যেমন, Printer, DVD-Rom Drive, Storage Device, Scanner ইত্যাদি Network-এর অন্য Computer –এর সাথে Share করা যেতে পারে। অর্থাৎ আপনার Network-এ একটি Printer  সংযুক্ত থাকলে Network- এর সকল Device সেটি ব্যবহার করতে পারবে। তাই Networking – এর প্রধান সুবিধা। কেবল Printer, Scanner শেয়ার করা নয়, মূল গুরুত্ব দেয়া হয় তথ্য Sharing-এর উপর।

Network-এ কেবল যে Computer-ই আরেকটি Computer-এর সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে তা নয়; অন্য Device, যেমনঃ Network Printer, IP Phone, Storage Device ইত্যাদি পরস্পরে সাথে যোগাযোগ গড়ে তুলতে পারে। Network-এ সংযুক্ত PC, Scanner, Printer বা অন্যকোন Device যা তথ্য আদান-প্রদান করতে পারে তাকে বলা হয় Node. Network- এর বিভিন্ন Device, একটি আরেকটির নিকট তথ্য পাঠানোর জন্য অবশ্যই একটি মাধ্যম প্রয়োজন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে Device-গুলিকে যুক্ত করার জন্য Cable ব্যবহার করা হয়।একটি লম্বা Cable-এর সাথে বিভিন্ন Device, Serially যুক্ত থাকতে পারে অথবা সকল Device থেকে একটি করে Cable নিয়ে কোন Central Location-এ যুক্ত করা যেতে পারে। এসব Cable সাধারণত তামার হয়। যা খুবই সহজলভ্য এবং বহুল ব্যবহৃত। এ ছাড়া কাঁচ ও প্লাস্টিক এর তৈ্রী Optical Fiber ব্যবহার করা হয়।তারহীন প্রযুক্তি এখন বহুল ব্যবহৃত। Bluetooth,  Wifi,  Wimax ব্যবহার করে বিভিন্ন Network গড়ে তোলা হচ্ছে।

যখন একাধিক Network একে অপরের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারে তখন তাকে বলা হয় Internetwork.  Hardware এবংSoftware-এর মাধ্যমে একাধিক Network –কে পরস্পর সংযুক্ত করার পদ্ধতি হল Internetworking. Internetworking –এর জন্য বিশেষ Hardware Device প্রয়োজন। এই device-কে Router বলা হয়।

সাধারণত একই Building –এর মাঝে অবস্থিত PC বা বিভিন্ন Hardware Device নিয়ে গঠিত Network-কে বলা হয় Local Area Network বা সংক্ষেপে LAN । এই ধরনের Network  তৈরিতে খুবই সহজ প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়। LAN তৈরিতে Internet working Device প্রয়োজন নাই।

কাছাকাছি বা একই শহরের মধ্যে অবস্থিত একাধিক LAN-এর সমন্বয়ে গঠিত Internetwork-কে Metropolitan Area Network  বা MAN বলা হয়। এই ধরনের Network তৈরিতে Internetworking Device প্রয়োজন।

Wide Area Network গড়ে ওঠে দূরবর্তী LAN  সমুহকে নিয়ে। এর গঠন কিছুটা জটিল।

(পরবর্তী পর্বের জন্য অপেক্ষা করুন)

Check Also

digital world

শুরু হল তিন দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড মেলা

মিডিয়া খবর :- বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল মেলা ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৬” শুরু হচ্ছে আজ থেকে। ডিজিটাল …

robi airtel

রবি-এয়ারটেল এক হচ্ছে

মিডিয়া খবর :- মোবাইল অপারেটর রবি-এয়ারটেলের একীভূতকরণের (মার্জার) বিষয়ে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ …

4 comments

  1. Gazi Yasir Arafat

    Nice article bro… … … waiting eagerly for next article… … …

  2. Nice post bro…We are waiting for your next part of networking……

  3. Md. Iftekharul Alam

    Great :)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares