Home » নিউজ » জোটের শান্তি সমাবেশ শহীদ মিনারে

জোটের শান্তি সমাবেশ শহীদ মিনারে

Share Button

মিডিয়া খবর :-

শনিবার হোলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার এক বছর হয়ে গেল। শনিবার বিকেল থেকে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শান্তি সমাবেশ ও মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচি পালন করল।

শনিবার বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সম্মিলিত সাংস্কৃতি জোট আয়োজিত শান্তি সমাবেশে কবিতায়-গানে-আলোচনায় হোলি আর্টিজান হামলায় নিহত ব্যক্তিদের স্মরণ করা হয়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, হোলি আর্টিজান হামলার ঘটনার পর বাংলাদেশ আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সম্মিলিতভাবে উগ্রবাদীদের বিরুদ্ধে এই সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।
নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার বলেন, জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধনগুলো দৃঢ় করা জরুরি। তিনি আরও বলেন, ফারাজ ওই পরিস্থিতিতে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেননি। বীরের মতো সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তিনি তাঁর বন্ধুদের ফেলে যাবেন না। ফারাজের মতো তরুণেরাই বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবেন। ১ জুলাইকে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ দিবস হিসেবে ঘোষণার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান তিনি।
নাট্যজন আতাউর রহমান বলেন, ‘আমরা এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি চাই না। আমরা সংগ্রাম চালিয়ে যাব।’
নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ বলেন, হোলি আর্টিজানে হামলাকারীরা বাংলাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন সংখ্যালঘু অংশ। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ এত নৃশংস হতে পারে না। তিনি দেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতি ও সরকারের সমালোচনা করে বলেন, ‘ধর্মান্ধ শক্তির সঙ্গে কোনো আপস করলে তা আত্মঘাতী হবে, এটা যেন তাঁরা বোঝেন।’

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। তিনি বলেন, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে। সমৃদ্ধির পথে যাত্রা শুরু হলেও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বারবার ধাক্কা খাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, এখনকার সমাজে কিছু পরিবর্তন ঘটছে, যা এই ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে। মনোজাগতিক পরিবর্তনগুলো নিয়ে কাজ করা প্রয়োজন।
সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের নেতা সীমা মোসলেম, অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান প্রমুখ। কবিতা পড়ে শোনান কবি আসাদ চৌধুরী ও তারেক সুজাত। আরও উপস্থিত ছিলেন মফিদুল হক, অধ্যাপক আনেয়ার হোসেন, কবি নূরুল হুদা, অভিনেতাপীযূষ বন্দোপাধ্যায়, ফকির আলমগীর, ম. হামিদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দীন ইউসুফ। তিনি বলেন, ‘আমরাভেবেছিলাম ১ জুলাইয়ের পর আর কোনো সাম্প্রদায়িক সহিংসতা হবে না। কিন্তু দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন। ৪০টির বেশি জায়গায় গত এক বছরে সাম্প্রদায়িক হামলা হয়েছে।’। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ সমাপনী বক্তব্য রাখেন। তারপর হোলি আর্টিজান হামলায় নিহত ব্যক্তিদের জন্যে মোমবাতী জ্বালিয়ে শ্রদ্ধা জানান হয়।

Check Also

ডিরেক্টরস গিল্ডের গুণীজনদের সম্মাননা

মিডয়া খবর :- ডিরেক্টরস গিল্ডের যে সকল সদস্য (জীবিত ও মৃত) এযাবত স্বাধীনতা পদক, একুশে …

১২ জুন থেকে ট্রেন-বাসের আগাম টিকিট

মিডিয়া খবর :- ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেন ও বাসের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হবে আগামী ১২ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares