Home » প্রোফাইল » সূর্যোদয়ের কবি হাসান হাফিজুর রহমান    
hasan-h

সূর্যোদয়ের কবি হাসান হাফিজুর রহমান    

Share Button

ঢাকা:-

-কাজী চপল

আমাদের সংস্কৃতির একজন অসাধারণ কৃতীপুরুষ হাসান হাফিজুর রহমান। কবিতা, গল্প, প্রবন্ধ, রাজনৈতিক কলাম, সমালোচনা সব কিছুতেই আছে তার অসামান্যতার স্বাক্ষর। তিনি একাধারে একজন বিশিষ্টকবি, প্রগতিশীল আন্দোলনের একজন মহানকর্মী, মননশীল প্রবন্ধকার, খ্যাতিমান অধ্যাপক, কথাশিল্পী, অসাধারণ সাহিত্য-সংস্কৃতি সংগঠক, প্রতিভাধর সাংবাদিক, নিরপেক্ষ সমালোচক, সফল সম্পাদক মৃত্যুর পূর্বে ১৬ খণ্ডের স্বাধীনতার দলিলপত্র সম্পাদনা করে সর্বোচ্চ মহৎ কাজের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। তা ছাড়া প্রথম ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ সঙ্কলনের প্রকাশক হিসেবে বিখ্যাত হয়ে আছেন। প্রথিতযশা কবি, সাংবাদিক ও সমালোচক হাসান হাফিজুর রহমান  ১৯৩২ সালে ১৪ জুন বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর শহরে তাঁর নানা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পৈত্রিক বাড়ি ছিলো বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার ইসলামপুর থানার কুলকান্দি গ্রামে। তাঁর বাবার নাম আবদুর রহমান এবং মায়ের নাম হাফিজা খাতুন। হাসান হাফিজুর রহমান ছিলেন পিতার দ্বিতীয় স্ত্রীর প্রথম সন্তান।

হে আমার জ্ঞান একটি মাত্র উচ্চারণের বিষ আমাকে দাও
যা হৃদয় থেকে হৃদয়ে ছড়ায়,
ওষধি জন্মের মত একবার স্পন্দিত হয়ে যে ঘৃনা আর
কখনো মৃত্যুকে জানেনা, হে আমার জ্ঞান।

hasan-1

হাসান হাফিজুর রহমান ১৯৩৮ সালে ঢাকার নবকুমার স্কুলে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে সরাসরি তৃতীয় শ্রেণীতে ভর্তি হন। ১৯৩৯ সালে তাঁর বাবা বরিশালে বদলি হয়ে গেলে তিন বছর জামালপুরের সিংজানী হাইস্কুলে পড়াশুনা করেন তিনি। ১৯৪২ সালে তাঁর বাবা ঢাকায় বদলি হয়ে এলে হাসান হাফিজুর রহমান ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে ভর্তি হন এবং মাধ্যমিক পরীক্ষা পর্যন্ত এই স্কুলেই পড়াশুনা করেন।
১৯৪৬ সালে হাসান হাফিজুর রহমান ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল থেকে দ্বিতীয় বিভাগে মাধ্যমিক পাস করেন এবং এ বছরই ঢাকা কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে মানবিক শাখায় ভর্তি হন। ১৯৪৮ সালে তিনি ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন এবং এ বছরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে বি.এ. অনার্স শ্রেণীতে ভর্তি হন। কিন্তু অনার্স ফাইনাল পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ না করে ১৯৫১ সালে তিনি পাস কোর্স-এ বি.এ. পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হন এবং এ বছরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রথম পর্ব এম.এ. শ্রেণীতে ভর্তি হন।
১৯৫৫ সালে এম.এ. দুই পর্ব এক সাথে পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন হাসান হাফিজুর রহমান এবং এ বছরই তিনি ‘ইত্তেহাদ’ পত্রিকার সহকারী সম্পাদক হিসেবে চাকুরি গ্রহণ করেন।
১৯৫৭ সাল পর্যন্ত তিনি ‘ইত্তেহাদ’ পত্রিকায় চাকুরি করেন । ১৯৫৭ সালেই তিনি জগন্নাথ কলেজে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ড্রামা সার্কেল (১৯৫৭-৫৮) গঠিত হলে তিনি তার সভাপতি হন। ১৯৫৭ সালে সিকান্দার আবু জাফর ও হাসান হাফিজুর রহমান যৌথ উদ্যোগে ‘সমকাল’ নামে একখানা উন্নত শ্রেণীর মাসিকপত্র বের করেন।
১৯৫০ সালে ‘পূর্বাশা’-য় তাঁর কবিতা ‘যে কোন সর্বহারার প্রার্থনা’ গুরুত্ব দিয়ে ছাপা হলে রাতারাতি সাহিত্যাঙ্গনে তিনি আলোচিত হয়ে ওঠেন। ১৯৫০ সালে আশরাফ সিদ্দিকী এবং আবদুর রশীদ খান সম্পাদিত বিভাগোত্তর কালের প্রথম আধুনিক কবিতা সংকলন ‘নতুন কবিতা’য় ‘কোন একজনের মৃত্যুর মুহূর্তে’ কবিতাটি অন্তর্ভুক্ত হয়। তাঁর দাঙ্গাবিরোধী অনবদ্য গল্প ‘আরো দুটি মৃত্যু’ ১৯৫০ সালে প্রথমে ‘অগত্যা’য় এবং পরে ‘দিলরুবা’ পত্রিকায় মুদ্রিত হয়। 

দেশ আমার, স্তব্ধ অথবা কলকন্ঠ এই দ্বন্ধের সীমান্তে এসে
মায়ের স্নেহের পক্ষে থেকে কোটি কন্ঠ চৌচির করে দিয়েছি:
এবার আমরা তোমার।

অমর একুশে’ কবিতাটি তিনি ১৯৫২-এর মার্চ/এপ্রিলের দিকে লেখেন।
১৯৫৩ সালের জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ কবিতাটি তাঁর সম্পাদিত ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ সংকলনেই প্রথম  প্রকাশিত হয় যদিও তা বাজেয়াপ্ত হয়ে যায় ২০শে ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায়। তাঁর মোট গ্রন্থের সংখ্যা ৩০টির অধিক।hasan-2
ষাটের দশকে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তান কর্তৃক বাংলার অক্ষর বদলিয়ে আরবি অক্ষরে রূপান্তরের ষড়যন্ত্র ও রেডিও টিভিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাহিত্যকর্ম প্রচারের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেবার দাবিতে জোরালো আন্দোলনে অংশ নেন। হাসান হাফিজুর রহমান কম্যুনিস্ট ভাবধারায় বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি বাঙালি কৃষ্টি ও সংস্কৃতিতে অবিচল আস্থাশীল ছিলেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি সরাসরি অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তাঁর কনিষ্ঠ দুই ভাই ফারুক হাসিবুর রহমান ও কায়সার আমিনুর রহমান পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর হাতে শহীদ হন। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি যোগ দেন তাঁর পুরনো কর্মক্ষেত্র ‘দৈনিক বাংলা’য় (‘দৈনিক পাকিস্তান’ পত্রিকার পরিবর্তিত নাম)। ১৯৭২ সালের জানুয়ারি মাসে ‘দৈনিক বাংলা’র সম্পাদক মণ্ডলীর সভাপতি হিসেবে হাসান হাফিজুর রহমানের পরবর্তী কর্মজীবন শুরু হয়। স্বাধীনতার পর প্রকাশিত ‘বিচিত্রা’র প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদকও ছিলেন তিনি। তারপর তাঁকে মস্কোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রেস কাউন্সিলর নিযুক্ত করা হয়।

hasan-4
১৯৭৮ সালে হাসান হাফিজুর রহমান গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও বেতার মন্ত্রণালয়ের ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রকল্প’-এর প্রধান নিযুক্ত হন। তাঁর সম্পাদনায় ষোল খণ্ডে পরিকল্পিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ: দলিলপত্র সংকলনের কাজ সম্পন্ন হয়। প্রকল্পের পরিচালকের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা অবস্থায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৯৮৩ সালের ১৭ জানুয়ারি চিকিৎসার জন্য তাঁকে সোভিয়েত ইউনিয়নের মস্কোতে প্রেরণ করা হয়। ১৯৮৩ সালের ১ এপ্রিল হাসান হাফিজুর রহমানের কর্মবহুল ও বৈচিত্র্যময় জীবনের অবসান ঘটে। ৫ এপ্রিল মঙ্গলবার মস্কোর শান্তি সরণীর মসজিদে জানাজার পর তাঁর মরদেহ ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গণে দ্বিতীয়বার জানাজার পর বনানী কবরস্থানে হাসান হাফিজুর রহমানকে শায়িত করা হয় চিরনিদ্রায়।

সাহিত্য ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য হাসান হাফিজুর রহমানকে ১৯৬৭ সালে লেখক সংঘ পুরস্কার, ১৯৬৮ সালে আদমজী পুরস্কার, ১৯৭১ সালে বাংলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৭৬ সালে সূফী মোতাহার হোসেন স্মৃতি পুরস্কার, ১৯৮২ সালে অলক্ত সাহিত্য পুরস্কার এবং ১৯৮২ সালে সওগাত সাহিত্য পুরস্কার ও নাসিরউদ্দিন স্বর্ণ পদক এবং ১৯৮৪ সালে মরোনোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।
কবি, প্রবন্ধকার ও গল্পকার, সাহিত্য-সংস্কৃতিক আন্দোলনের প্রধান সংগঠক হাসান হাফিজুর রহমনের মৃত্যুদিবসে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি ।

তথ্যসূত্র: স্মৃতিতে অম্লান : হাসান হাফিজুর রহমান, লেখক- শাহ আহমদ রেজা। ‘হাসান হাফিজুর রহমান’, সম্পাদক- খালেদ খালেদুর রহমানপ্রকাশকাল- জুন১৯৮৩ ‘হাসান হাফিজুর রহমান : জীবন ও সাহিত্য’ লেখক- রফিকউল্লাহ খান, প্রকাশনী- বাংলা একাডেমী, প্রথম প্রকাশ- জুন, ১৯৯৩, উইকিপিডিয়া।

hasan-3

(হাসান হাফিজুর রহমানের সঙ্গে শামসুর রাহমান, বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, আলাউদ্দিন আলআজাদ, আক্তারুজ্জামান ও আমিনুল ইসলাম )

Check Also

third-eye-photographic-soci

আন্তর্জাতিক আলোকচিত্র প্রদর্শনী

মিডিয়া খবর:-       : নাজমুল হুদা নয়ন : থার্ডআই ফটোগ্রাফিক সোসাইটি আয়োজিত “বাংলাদেশ …

gomvira-utsab

শুরু হচ্ছে গম্ভীরা উৎসব

মিডিয়া খবর :- চাপাইনবাবগেঞ্জর গম্ভীরাকে ধরে রাখতে গড়ে তোলা হয়েছে জাতীয় ভিত্তিক সাংস্কৃতিক-সামাজিক সংস্থা ‘দিয়াড়’। …

One comment

  1. হাসান হাফিজের কথা এই প্রজন্মের কারোই আর মনে নেই বললেই চলে। ধন্যবাদ তাকে স্মরণের জন্য।
    তার আরো একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ অবদান শেয়ার করতে চাই। তা হলো ভাষা আন্দোলনের সময় ১৪৪ ভাঙা নিয়ে দ্বিধাবিভক্তি দেখা দিলে যে অংশের নেতৃত্বে তা ভাঙা হয় তার অন্যতাম তিনি। তিনি একুশ ফেব্রুয়ারী ঢাকা মেডিকেল কলেজের আমতলার সমাবেশের গেটে দাড়িয়ে চারজন করে আন্দোলনকারীদের পাঠান এবং চিরকুটে তাদের নাম টুকে রাখেন । একপর্যায়ে সরকারী বাহিনী সবাইকে অবাক করে দিয়ে গুলি ছুড়লে তিনি গর্জে উঠে গেইট খুলে নিজেই বেরিয়ে যান আর পেছন পেছন জনস্রোত নেমে পড়ে রাস্তায়।
    হাসান হাফিজ যদিও কবি হিসেবেই অধিক পরিচিত, কিন্তু তার ছোট গল্পগুলো পড়লে জানা যায় আরেক হাসান হাফিজকে। তার গদ্যের ধার যে কারো মনোজগতকে নাড়া দিতে বাধ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares