Home » প্রোফাইল » জন্মদিনে শ্রদ্ধার্ঘ্য প্রিয় আবদুল্লাহ আল মামুন
abdulla al mamun

জন্মদিনে শ্রদ্ধার্ঘ্য প্রিয় আবদুল্লাহ আল মামুন

Share Button

ঢাকা:-

–  পাভেল রহমান

উইকিপিডিয়ার তথ্য মতে বরেণ্য নাট্যব্যাক্তিত্ব আবদুল্লাহ আল মামুনের জন্মদিন ১৩ জুলাই। কিন্তু আবুদল্লাহ আল মামুনের নাট্যদল থিয়েটার নাটক স্মরণী ১২ জুলাই তার জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজন করেছে জন্মদিনের শ্রদ্ধার্ঘ্য অনুষ্ঠানমালা। এ প্রসঙ্গে আবদুল্লাহ আল মামুনের দীর্ঘ দিনের নাট্য সহচর রামেন্দু মজুমদার বলেন- “আবদুল্লাহ মামুনের জন্মদিন নয়ে একটু খটকা আছে। তবে মামুন নিজেই দুইটা জন্মদিন পালন করেছেন। তার জন্ম আসলে ১২ জুলাই। আমরা নাট্যদল থেকে প্রতি বছর ১২ জুলাই আবদুল্লাহ আল মামুনের জন্মদিন উদযাপন করে আসছি।

১৯৪২ সালে জামালপুর জেলার আমড়া পাড়ায় জন্ম নেন এ কৃতি নাট্যব্যাক্তিত্ব। সেই হিসেবে এ বছর ৭২তম জন্মদিন উদযাপিত হচ্ছে তার। প্রয়াত আবদুল্লাহ আল মামুনের জন্মদিনে শ্রদ্ধার্ঘ্য অনুষ্ঠানমালার আয়োজন প্রসঙ্গে রামেন্দু মজুমদার বলেন- “১২ জুলাই, শনিবার জাতীয় নাট্যশালার এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে আলোচনা অনুষ্ঠান এবং সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে আবদুল্লাহ আল মামুন রচিত ও নির্দেশিত নাটক ‘মেরাজ ফকিরের মা’।

অসংখ্য নাটক রচনায় গুণী নাট্য ব্যাক্তিত্ব আবদুল্লাহ আল মামুন যেমন নিজের প্রতিভা আর শক্তির পরিচয় দিয়েছেন, তেমনি নিজের অপরিমেয় ক্ষমতার প্রমাণ রেখেছেন তাঁর নির্দেশনায় ও অভিনয়ে। আবদুল্লাহ আল মামুনের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে তুলে ধরা হলো তার বর্ণিল জীবনের কিছু তথ্য।

বর্ণাঢ্য জীবন
আব্দুল্লাহ আল মামুন ১৯৪২ সালের ১২ই জুলাই জামালপুর জেলার আমড়া পাড়ায় জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা অধ্যক্ষ আব্দুল কুদ্দুস এবং মাতা ফাতেমা খাতুন। তিনি ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস বিষয়ে এম এ পাস করেন। আব্দুল্লাহ আল মামুন তার পেশাগত জীবন শুরু করেন বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রযোজক হিসেবে। পরবর্তীকালে পরিচালক, ফিল্ম ও ভিডিও ইউনিট (১৯৬৬-১৯৯১), মহাপরিচালক, শিল্পকলা একাডেমী (২০০১) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।ABDULLAH-AL-MAMUN
অসংখ্য নাটক রচনায় যেমন নিজের প্রতিভা আর শক্তির পরিচয় দিয়েছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন, তেমনি নিজের অপরিমেয় ক্ষমতার প্রমাণ রেখেছেন তাঁর নির্দেশনায় ও অভিনয়ে৷
তাঁর রচিত উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে সুবচন নির্বাসনে, এখনও দুঃসময়, সেনাপতি, এখনও ক্রীতদাস, কোকিলারা, দ্যাশের মানুষ, মেরাজ ফকিরের মা, মেহেরজান আরেকবার ইত্যাদি৷ নাট্য সংগঠন থিয়েটার-এর তিনি প্রতিষ্ঠাতা সদস্য৷ নাটকের সঙ্গে সঙ্গে নির্মাণ করেছেন চলচ্চিত্র, টিভি সিরিয়াল।
শহীদুল্লাহ কায়সারের আকর উপন্যাস নিয়ে নির্মাণ করেন ধারাবাহিক নাটক ‘সংশপ্তক;। এ ধারাবাহিক নাটকের পরিচালক ও প্রযোজক হিসেবে তিনি পান প্রবাদ প্রতিম খ্যাতি। তাঁর নির্মিত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে সারেং বৌ (১৯৭৮), সখী তুমি কার, এখনই সময়, জোয়ারভাটা, শেষ বিকেলের মেয়ে।

প্রকাশিত গ্রন্থ
তাঁর প্রথম নাটক শপথ ১৯৬৪ সালে প্রকাশিত হয়। তাঁর প্রকাশিত অন্যান্য নাটক হলো সুবচন নির্বাসনে (১৯৭৪), এখন দুঃসময় (১৯৭৫), এবার ধরা দাও (১৯৭৭),  শাহজাদীর কালো নেকাব (১৯৭৮), চারদিকে যুদ্ধ (১৯৮৩), এখনও ক্রীতদাস (১৯৮৪), কোকিলারা (১৯৯০), মেরাজ ফকিরের মা (১৯৯৭)। তাঁর লিখিত উপন্যাস গুলো হচ্ছে মানব তোমার সারা জীবন (১৯৮৮), হায় পারবতী (১৯৯১), খলনায়ক (১৯৯৭)।

abপুরস্কার
অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন৷ পেয়েছেন বাংলা একাডেমী পুরস্কার, প্রথম জাতীয় টেলিভিশন পুরস্কার। শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে পেয়েছেন দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। একুশে পদকে ভূষিত হন তিনি ২০০০ সালে।

দীর্ঘ রোগভোগের পর ২০০৮ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বারডেম হাসপাতালে ৬৬ বছর বয়সে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Check Also

ভালবাসা উৎসবে নতুন গানের সম্ভার

মিডিয়া খবর :- রবি ও এয়ারটেল ইয়ন্ডার মিউজিক কিছু নতুন গান মুক্তির মধ্য দিয়ে ভালবাসা দিবস …

শিল্পকলায় মর্তের অরসিক

মিডিয়া খবর:- আজ শিল্পকলা একাডেমীর স্টুডিও থিয়েটার হলে সন্ধ্যা ৭ টায় মঞ্চায়িত হবে বঙ্গলোকের দ্বিতীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares