Home » টিভি চ্যানেল » পালাক্রমে চাকরি হারাচ্ছেন একুশে টেলিভিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারী
etv

পালাক্রমে চাকরি হারাচ্ছেন একুশে টেলিভিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারী

Share Button

মিডিয়া খবর :-

গত এক মাসে বিনা অপরাধে চাকরি হারিয়েছেন একুশে টেলিভিশনের শতাধিক কর্মকর্তা ও কর্মচারী। যাদের চাকরি যাওয়ার মত কোন অপরাধই ছিল না, দীর্ঘদিন যাবৎ যাদের অক্লান্ত মেধা আর পরিশ্রম এর ফসল আজকের একুশে টেলিভিশন সেইসব কর্মীদের বিনা বাক্য ব্যয়ে চলে যেতে বাধ্য করা হল। প্রায় প্রতিদিনই পালাক্রমে চাকরি হারাচ্ছেন একুশে টেলিভিশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারী। বিশ্বস্তসুত্রে জানা গেছে যে নতুন করে একজন চাকুরীতে যোগ দিচ্ছেন আর একজন করে পুরাতনকর্মীকে চাকুরীচ্যুত করা হচ্ছে। পুরাতন সকলে এখন আতংকে আছেন আর অপেক্ষায় আছেন কখন তাকে বলে দেয়া হবে যে আপনি পদত্যাগ করবেন না চাকুরীচ্যুত হবেন।

অথচ বর্তমান কর্তৃপক্ষ  চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মদ সাইফুল আলম  মালিকানায় এসে বলেছিলেন কাউকে বাদ দেয়া হবেনা, সকলকে নিয়ে এগিয়ে যাবে একুশে টেলিভিশন। ধীরে ধীরে পুরোন কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাদ দেয়ার এ রীতিকে মিডিয়ার লোকজন অনৈতিক কাজ হিসেবে দেখছেন।

২০০০ সালের ১৪ এপ্রিল উন্মুক্ত টেরিস্ট্রিয়াল টেলিভিশন কেন্দ্র হিসেবে সম্প্রচার শুরু করলেও ২০০২ সালের ২৯ অগাস্ট চারদলীয় জোট সরকারের সময়ে আদালতের রায়ের পর একুশে টেলিভিশন বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এরপর ২০০৫ সালের ১৪ এপ্রিল পুনরায় সম্প্রচারের অনুমতি নিয়ে ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ স্যাটেলাইট টেলিভিশন হিসেবে সম্প্রচারে আসে একুশে টিভি।

২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় দায়ের করা এক মামলায় ২০১৫ সালের ৬ জানুয়ারি গ্রেপ্তার হন একুশে টিভির  চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম। ভুয়া বিল-ভাউচারের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগে বেসরকারি টেলিভিশন একুশে টিভির সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সেই থেকে তিনি এখনো কারাগারে রয়েছেন। পরে ২০১৫ সালের ৮ জানুয়ারি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে প্রধান আসামি করে দায়ের করা একটি রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায়ও তাকে আসামি করা হয়।

আব্দুস সালাম জেলে থাকার সময় গত বছরের ৮ অক্টোবর এক নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে একুশে টেলিভিশন লিমিটেডের শেয়ার এবং ট্রেডমার্ক, সার্ভিস মার্ক, লোগোসহ এতদসংক্রান্ত সব কিছু কিনে নেয় এস আলম গ্রুপ। এরপর ২৫ নভেম্বর প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক মণ্ডলীর এক সভায় পরিচালনা পর্ষদেও পরিবর্তন আসে। বর্তমানে একুশে টিভির পরিচালনা পর্ষদে মোহাম্মদ সাইফুল আলম  চেয়ারম্যান এবং আব্দুস সামাদ ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন।

বর্তমানে নতুন পরিচালনা পর্ষদের দায়িত্ব গ্রহনের পর একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল। সম্প্রতি অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান হিসেবে যোগ দিয়েছেন ফারহানা  নিশো। একদিকে নতুন নতুন কর্মচারীর যোগদান অন্যদিকে চলছে সাধারন কর্মীদের চাকরি হারানোর পালা।

Check Also

চতুর্থ বর্ষে পা রাখল একাত্তর টেলিভিশন

মিডিয়া খবর:- সম্প্রচারের তিন বছর পূর্ণ করল দেশের জনপ্রিয় সংবাদভিত্তিক টিভি চ্যানেল একাত্তর। আজ পা …

যমুনা টিভির প্রথম বর্ষপূর্তি

মিডিয়া খবর:- এক বছর পূর্ণ করল যমুনা টেলিভিশন। ২০১৪ সালে ৫ এপ্রিল আনুষ্ঠানিক সম্প্রচার শুরু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares