Home » মঞ্চ » শিল্পকলার দুই হলেই আজাদ আবুল কালামের নাটক
sarkas sarkas

শিল্পকলার দুই হলেই আজাদ আবুল কালামের নাটক

Share Button

মিডিয়া খবর :-

শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় নাট্যশালার মূল থিয়েটার হলে সন্ধ্যা ৭টায়  প্রাচ্যনাটের মূলধারার প্রথম নাট্য প্রযোজনা সার্কাস সার্কাস। ১৬ নভেম্বর, সোমবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মূল হলে সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চস্থ হবে এ নাটকটি। প্রাচ্যনাটের চতুর্থ এ প্রযোজনাটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন আজাদ আবুল কালাম।

নাটকের গল্প প্রসঙ্গে নির্দেশক জানিয়েছেন- প্রতিষ্ঠাতা লক্ষণ দাসের কারণে ‘দ্য গ্রেট বেঙ্গল সার্কাস’ এর এককালে নাম ডাক ছিল। তার ভাই সাধন দাস অনেক কষ্টে দলটিকে চালাচ্ছেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় যে দলটি নিঃস্ব হয়েছিল তাকে আবার একটু একটু করে সংগঠিত করেছে সে। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন অঞ্চলে সার্কাস প্রদর্শন করে দলটি। এরপর এক আমন্ত্রণে দলবল নিয়ে হাজির হয় নবগ্রামে।

দলে সমস্যার অন্ত নেই। এ দলের সব খেলোয়াড়পারদর্শী এমনটা বলা যাবে না। খেলোয়ারদের মধ্যে ব্যক্তিগত সম্পর্কের টানাপোড়েনে সবাই তটস্থ। শুরুতে কিছু মৌলবাদী সংগঠন ধর্ম ও সামাজিকতার দোহাই দিয়ে সার্কাস প্রদর্শনে বাধ সাধে। সাধন দাস পড়ে যান বিপাকে কিন্তু অভিজ্ঞতা তাকে যেমন সংশয়ী করেছে তেমনি করেছে ভয়হীন। মুখোমুখি হয় দুটো পক্ষ।

এর মাঝে বিভিন্ন দিক থেকে একের পর এক আসতে থাকে সাবধানতার বাণী, চারিদিকে সবাই যেন তাকে ভয় দেখায়। এমনকি দলের খেলোয়াড়রাও। এরমধ্যে দলের একটি মেয়ে নিখোঁজ হয়। এমন গল্প নিয়ে গড়ে উঠেছে এ নাটকের গল্প।

নাটকের বিভিন্ন চরিত্র রূপায়ন করবেন- আজাদ আবুল কালাম, আসলামুজ্জামান পলাশ, তপন মজুমদার শাহেদ আলী সুজন, হীরা চৌধুরী, সাখাওয়াত হোসেন রেজভী, জাহাঙ্গীর আলম , এ. বি. এস জেম, শতাব্দী ওয়াদুদ , তৌফিকুল ইসলাম ইমন,  রাহুল আনন্দ, শাহনাজ জেরিন সাত্তার সানজিদা প্রীতি, পারভিন সুলতানা কল, ফরহাদ হামি, রফিকুল ইসলাম ,শাহরিয়ার ফেরদৌস সজীব মোস্তাক আহমেদ টিটু ও আল-আমিন খন্দকার।

মঞ্চ, আলো ও মুখোশ পরিকল্পনায়- সাইফুল ইসলাম। পোষাক পরিকল্পনায়- তৌফিকুল ইসলাম ইমন এবং সংগীত পরিকল্পনায়- রাহুল আনন্দ।

 

শিল্পকলা একাডেমীর এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির এক্সপেরিমেন্টাল হলে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর দর্শকনন্দিত নাটক ‘হাফ আখড়াই’-এর পরিবেশনা।  বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও উদীচীর কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. রতন সিদ্দিকীর রচনা ও আজাদ আবুল কালামের পরিচালনায় নাটকটিতে অভিনয় করেছেন উদীচী কেন্দ্রীয় নাটক বিভাগের শিল্পীরা।

আজ বিকেল ৫টা থেকে এক্সমেরিমেন্টাল হলের টিকিট কাউন্টারে নাটকটির টিকিট পাওয়া যাবে।
উনিশ শতকের গোড়ার দিকে বাংলা টপ্পা গানের একটি দল ঘিরে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, নারীর প্রতি সে সময়ের সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি, ধনী-গরিব half-akhraiবৈষম্য প্রভৃতি বিষয়ই নাটকটির মূল প্রতিপাদ্য। নাট্যকার রতন সিদ্দিকী জানান, ১৮০৪ সালে বাংলা টপ্পা গানের জনক রামনিধি গুপ্ত কলকাতায় প্রতিষ্ঠা করেন আখড়াই। নিজস্ব পদ্ধতিতে সংগীত শিক্ষা প্রচলনের মাধ্যমে দ্রুতই কলকাতার অভিজাত শ্রেণির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি। কিন্তু বয়সের ভারে শিষ্য মোহনচাঁদের কাছে শিক্ষাগুরুর দায়িত্ব হস্তান্তরের পরই ধীরে ধীরে পাল্টাতে থাকে তার প্রতিষ্ঠিত আখড়াইয়ের চেহারা। গুরু-শিষ্যের দ্বন্দ্বের একপর্যায়ে মোহনচাঁদ গঠন করেন আলাদা দল ‘হাফ আখড়াই’। এ দ্বন্দ্বই অত্যন্ত নিপুণভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ‘হাফ আখড়াই’ নাটকে।
পরিচালক আজাদ আবুল কালামের মতে, মোহনচাঁদের হাতে দলের দায়িত্ব যাওয়ার পর বাংলা টপ্পা গানের আরেক বাঁক পরিবর্তন দেখা দেয়। এ পরিবর্তন শৈল্পিক না হয়ে ছিল গণমানুষমুখী। তার কথায়Ñ ঐতিহাসিক উপাদান এখানে মূল উপজীব্য নয়, ইতিহাসের ছাইয়ের ভেতরে আত্মার হাহাকারই এ নাট্যক্রিয়ায় উষ্ণীষ।

 

Check Also

আজ নাটক কঞ্জুসের ৬৯০ তম মঞ্চায়ন

মিডিয়া খবর :- ৭০০ তম মঞ্চায়নের পথে এগিয়ে চলেছে হাসির নাটক কঞ্জুস। আজ নাটকটির ৬৯০ …

সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে ‘শিখণ্ডী কথা’

মিডিয়া খবর:  হিজলতলী গ্রামে বাড়ি রমজেদ মোল্লার। তার পরিবারে জন্ম হয় রতন মোল্লার। কিন্তু বয়ঃসন্ধিকালে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares