Home » অনুষ্ঠান » মিতালী মুখার্জির সংবর্ধনা
mitali-in-Bangladesh

মিতালী মুখার্জির সংবর্ধনা

Share Button

মিডিয়া খবর:-

‘যেটুকু সময় তুমি থাকো পাশে
মনে হয় এ দেহে প্রাণ আছে
বাকিটা সময় যেন মরণ আমার
হৃদয় জুড়ে নামে অথৈ আঁধার ‘ এ গানে আশির দশকে মেতেছিল বাংলাদেশ। যিনি মাতিয়েছিলেন তিনি মিতালী মুখার্জি।

ময়মনসিংহ শহ'দেশের মেয়ে' মিতালীকে সম্মাননারের নতুন বাজারে তার জন্ম। সেখানেই কেটেছে শৈশব। ভারতে পড়তে গিয়ে বিয়ে হলো পাঞ্জাবি ছেলের সঙ্গে। বাঙালি মেয়ে, তাই বিয়ের পর ঠিকানা হলো শ্বশুরবাড়ি। ঠিকানা বদল হলেও ‘বাপের বাড়ি’র প্রতি ভালোবাসা এখনও অটুট। ৩০ বছর আগে দেশ ছাড়লেও বাংলাদেশ ভুলেনি তার সন্তান মিতালীকে। তাই তো সিটিব্যাংক ‘গানে গানে গুণীজন সংবর্ধনা’ দিয়েছে দেশের মেয়ে মিতালী মুখার্জিকে।  
শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত হয় এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন খ্যাতিমান শিল্পী শাহনাজ রহমতউল্লাহ, সৈয়দ আবদুল হাদী, চিত্রনির্মাতা আমজাদ হোসেন প্রমুখ। ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কান্ট্রি অফিসার রাশেদ মাকসুদসহ সিটিব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
২০০৪ সাল থেকেই নিয়মতিভাবে গুণী সঙ্গীতশিল্পীদের সংবর্ধনা দিচ্ছে সিটিব্যাংক এনএ।  
অনুষ্ঠানের শুরুতে চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেন অনুজ মিতালী মুখার্জির শিল্পী হয়ে ওঠার দিনগুলোর স্মৃতিচারণ করেন। স্পিকারের হাত থেকে সংবর্ধনা পদক নেওয়ার পর মিতালী সংক্ষিপ্ত কথায় অনুভূতি প্রকাশ করেন। এরপর শুরু হয় গান। গানে গানে কেটে যায় পুরো সন্ধ্যা। গানের ফাঁকে ফাঁকে কথা বলেন মিতালী।
 
অনুভূতি প্রকাশের সময় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন মিতালী মুখার্জি। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, বাংলাদেশে এলে সবাই জিজ্ঞাসা করে, ‘তুমি চইল্যা গেলা ক্যান?’ এটাই আমার বড় অর্জন। এখনও সবাই আমাকে মনে রেখেছেন। তিনি বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানের ভিডিও শ্বশুরবাড়ির লোকদের দেখাব। তারা বুঝবেন বাপের বাড়ির মানুষেরা আমাকে কত ভালোবাসেন। বিয়ের পরও আমাকে পর করে দেননি।’'দেশের মেয়ে' মিতালীকে সম্মাননা
 
মিতালীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তারই জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করেন নতুন প্রজন্মের শিল্পী দিলদাম নাহার কণা। এরপর আবারও মঞ্চে আসেন মিতালী। দর্শক সারি থেকে অনুরোধ আসে, ‘যেটুকু সময় তুমি থাকো পাশে’ গানটি গাওয়ার জন্য। অনুরোধে সাড়া দিয়ে গানটি ধরতেই দর্শকরাও গলা মেলান। খোদ স্পিকারও তাতে যোগ দেন। 
 
এরপর একে একে গেয়ে শোনান আঞ্চলিক ভাষার গান ‘আমার পরান জুড়াইয়া গ্যাছে’, আধুনিক বাংলা ‘দুঃখ দিতেই ফিরে এলাম’। মৃত ভাইয়ের স্মরণে পরিবেশন করেন, ‘কেন আশা বেঁধে রাখি’। বারবার বাংলা মায়ের কোলে ফিরে আসার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গান শেষ করেন মিতালী।

Check Also

beauty-rizvi

বিউটি ও রিজভীর লোকগান

মিডিয়া খবর :- গীতিকার ফয়সাল রাব্বিকীনের কথায় দ্বৈতগানে কণ্ঠ দিলেন ক্লোজ-আপ ওয়ান তারকা বিউটি ও …

moner ghore prem

বেলাল ও মেরীর ‘মনের ঘরে প্রেম’

মিডিয়া খবর :- নতুন বছরে তরুণ কণ্ঠশিল্পী বেলাল খান এসেছেন তার একটি দ্বৈত গান নিয়ে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares