Home » অনুষ্ঠান » প্রডিউসার হওয়া এত সহজ বিষয় নয়
tv chanel

প্রডিউসার হওয়া এত সহজ বিষয় নয়

Share Button

মিডিয়া খবর :-

মাসুদুল হাসান রনি

আমাদের টেলিভিশনের অনুষ্ঠান, নাটকের মান নিয়ে অনেক কথা, অনেক বিতর্ক। সব বিতর্কে না গিয়ে শুধু যারা টেলিভিশনে কাজ করেন অর্থাৎ চাকুরীrony করেন তাদের সীমাবদ্ধতা নিয়ে ২/১টা কথা বলবো। অভিযোগ আছে ভালো অনুষ্ঠান নির্মানে প্রডিউসার ( টিভি অনুষ্ঠান নির্মাতা)  চাহিদা অনুযায়ী বাজেট পান না। তাকে যে বাজেট দেয়া হয় অনুষ্ঠান নির্মানের জন্য তাতে ভালো অনুষ্ঠান নির্মান কখনোই সম্ভব নয়। এমন কি শিল্পীদের সেই সম্মানী দিতে নিজেরাই কুন্ঠিত হন। ২৬টি চ্যানেলের মধ্যে ৩/৪ টি চ্যানেল ছাড়া বাকী সব চ্যানেলের অনুষ্ঠান বিভাগের গুরুত্বপুর্ণ পদে অযোগ্য লোক বসে আছেন। এদের মিনিমাম যোগ্যতাও নেই এসব পদ অলংকৃত করার। এরা পারেন মালিকের সন্তুস্টির জন্য তেলবাজী ও প্রডিউসারদের উপর ছড়ি ঘুরাতে। আমার পর্যবেক্ষণে আরেকটি বিষয় বলতে পারি, প্রডিউসাররা ভালো কিছু কাজ করতে চাইলেও তারা কেউ স্বাধীনভাবে কাজটি করতে পারেন না অপদার্থ অনুষ্ঠান প্রধান, ম্যানেজার ও মার্কেটিংয়ের চাপে। টেলিভিশন মিডিয়াকে বাঁচাতে হলে অবশ্যই অনুষ্ঠান নির্মাতাদের চিন্তার স্বাধীনতাকে ব্যাহত করা যাবে না। এক্ষেত্রে আমার একটা অভিজ্ঞতার কথা বলি, একবার টেলিভিশনের টকশো নিয়ে একটা স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। যাতে লেখা হয়েছিলো ‘ প্রেজেন্টার সাবজেক্টের বাইরে গিয়ে অপ্রাসংগিক কথা বলেন, তিনি কোন একটি দল বা গোষ্ঠীর চাটুকারিতা করেন, এর জন্য প্রডিউসার বিব্রত হন ।’ সেই প্রেজেন্টার একজন নামী সাংবাদিক। তিনি নালিশ জানালেন টেলিভিশনের উর্দ্ধতনকে। তিনি আমাকে ডেকে স্ট্যাটাসটি মুছে ফেলার জন্য নির্দেশ দিলেন। আমি সোজা বলেছিলাম, এইটা আমার নিজের স্বাধীনতা। আমি কি লিখবো না লিখবো তা যদি চ্যানেল থেকে বলে দেয়া হয় তাহলে আমার চাকুরী না করাই ভালো। উর্দ্ধতন আমাকে ইশারা করে বললেন, বেরিয়ে যাও। আমি রুম থেকে বেরিয়ে এসে ভাবলাম আজ বা কালই আমার চাকুরী শেষ। কিন্ত আমার চাকুরী যায়নি। এর কিছুদিন পর চাকুরী গিয়েছে সেই প্রেজেন্টারের। একই সাথে চ্যানেলগুলির বিভাগীয় প্রধান ও ব্যবস্থাপনায় মিডিয়ার অ.আ.ক.খ জ্ঞানবিহীন ইন্সুরেন্সের দালাল, সাবেক আর্মি অফিসার বা সচিব কিংবা ময়দা পাউডার মাখা রমনীদের নিয়োগ বন্ধ করতে হবে। এইসবস্থানে মিডিয়ার যোগ্য লোকদের নিয়োগ জরুরী।

এইবার নিজেদের প্রসংগে বলি। প্রডিউসার হওয়া এত সহজ বিষয় নয়। ২/৪টি নাটক বা অনুষ্ঠানের সহকারী হিসেবে কাজ করা কিংবা ক্যামেরাম্যান, এডিটরের উপর নির্ভর করে অনুষ্ঠান বানিয়ে ফেললাম মানে আমি প্রডিউসার হয়ে গেলাম এমন নয়। আমাদের টিভি মিডিয়াতে এখন তাই ঘটছে। তাহলে ভাল অনুষ্ঠান দর্শক পাবে কিভাবে? একজন প্রোডিসারের মধ্যে অবশ্যই বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা থাকা জরুরী। মনে রাখতে হবে ফাইভ, ফোর, থ্রি….. একশান বলতে জানলেই প্রডিউসার হওয়া যায় না। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার আলোকে বলতে পারি, আমাদের চ্যানেলগুলির ম্যাক্সিমাম প্রডিউসার নামধারীদের মাঝে মিনিমাম ইন্টেলেকচুয়াল হাইট বলতে কিছু নেই। শুধু গেস্ট, আর্টিস্ট ঠিক করা ছাড়া নিউ আইডিয়া ইনোভেশনে তারা এক অর্থে জিরো। অনেক ক্ষেত্রে দেখেছি প্রডিউসাররা প্রেজেন্টারকে পর্যন্ত গাইড করতে পারেন না। পারবেন কি করে অনুষ্ঠান নির্মানের আগে কোন গবেষণা বা রিলেভেন্ট সাবজেক্টের উপর তার নিজের কোন প্রস্তুতি থাকেনা। ফলে প্রডিউসার তার প্রেজেন্টারকে কোন সাহায্য করতে পারেন না। আমার এই কথায় অনেক সহকর্মী হয়তো ক্ষুব্ধ হবেন কিন্তু বাস্তবতাকে কি করে অস্বীকার করবেন? ভালো অনুষ্ঠান নির্মানে যেমন ভালো বাজেট প্রয়োজন তেমনি চ্যানেলগুলিতে যাকে তাকে প্রডিউসার বানানোও বন্ধ করতে হবে।  না হলে যে অন্ধকার চারিদিকে দৃশ্যমান, তা হয়তো আরো জেকে বসবে।

(লেখক – গণমাধ্যম কর্মী)

bangla-channeld-7

Check Also

rtv

আরটিভির যুগপূর্তি

মিডিয়া খবর:- আরটিভির যুগপূর্তি আজ। এ  উপলক্ষে গতকাল রাত ১১টায় ছিল গানের অনুষ্ঠান ‘উৎসব আনন্দে …

btv-52

৫৩-তে পা রাখলো বিটিভি

মিডিয়া খবর:- ৫২ বছর পেরিয়ে ৫৩-তে পা রাখলো বাংলাদেশ টেলিভিশন। দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল বিটিভির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares