Home » প্রোফাইল » বিশেষ সন্মাননায় পার্থ প্রতীম মজুমদার
partha-protim-majumder

বিশেষ সন্মাননায় পার্থ প্রতীম মজুমদার

Share Button

মিডিয়া খবর :-

পার্থ প্রতিম মজুমদার জনপ্রিয় একজন মূকাভিনয় বা মাইম শিল্পী। তিনি আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। সংস্কৃতি ক্ষেত্রে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও খ্যাতিমান আন্তর্জাতিক মূকাভিনেতা পার্থ প্রতীম মজুমদারকে বিশেষ সন্মাননায় সন্মানিত করল মার্কেন্টাইল ব্যাংক। মিডিয়া খবরের পক্ষ থেকে তাকে জানাই অভিনন্দন।partha-da-medel 

পার্থ প্রবাপ্পা মজুমদারতিম মজুমদারের পক্ষ থেকে পুরস্কারটি গ্রহণ করেন তার ছোটভাই বাপ্পা মজুমদার।

২৬ বছরের ফ্রান্স প্রবাসী এই মাইম শিল্পী মাইমের বিচারে বিশ্বে দ্বিতীয়৷ সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ফ্রান্স সরকারের শেভালিয়র উপাধি পেয়েছেন তিনি। তিনিই প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে এ পদক পেলেন। তিনি মঞ্চের পাশাপাশি ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র. যুক্তরাজ্য ও কানাডার বিভিন্ন চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন।

তাঁর অভিনীত একটি ফরাসি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ২৬টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার পায়। প্যারিস, ফ্রাঙ্কফুর্ট, নিউ ইয়র্কসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাঁর মূকাভিনয়ের প্রদর্শনী হয়েছে। প্রসঙ্গত, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন, নাইকি, আইবিএম ও ম্যাকডোনাল্ডের মতো বিশ্বখ্যাত কোম্পানির পণ্যের প্রচারে মডেল হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। তাঁর মাধ্যমেই বাংলাদেশে মূকাভিনয় পরিচিতি লাভ করে। 

পার্থ প্রতিম মজুমদারের জন্ম ১৯৫৪ সালের ১৮ জানুয়ারি পাবনা জেলার কালাচাঁদপাড়ায়। তিনি ছিলেন বাবা মায়ের দ্বিতীয় সন্তান৷ তাঁর বাবার নাম হিমাংশু কুমার বিশ্বাস এবং মাpartha-daয়ের নাম সুশ্রিকা বিশ্বাস৷ তাঁর স্ত্রীর নাম জয়শ্রী (ঝুমু)। পার্থ প্রতিম ও ঝুমু দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে৷ ছেলের নাম সুপ্রতিম ও মেয়ের নাম দোয়েল৷ ছোট বেলার তাঁর নাম ছিলো প্রেমাংশু কুমার বিশ্বাস । ডাক নাম ভীম।

কন্ঠশিল্পী বাপ্পা মজুমদারের বাবা পাবনার জমিদার এবং প্রখ্যাত উচ্চাঙ্গসঙ্গীতশিল্পী ওস্তাদ বারীণ মজুমদার ছিলেন তাঁর দুঃসম্পর্কের আত্মীয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় বারীণ মজুমদারের মেয়েটি হারিয়ে যায়। তখন মেয়ে-হারানো বারীণ মজুমদারের অনুরোধে তিনি চলে যান ঢাকার ২৮ নম্বর সেগুনবাগিচার বাসায়। তখন থেকেই তিনি পার্থ প্রতিম মজুমদার নামে পরিচিত। ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত তিনি সেগুনবাগিচায় ছিলেন।

প্রথম পড়াশুনা শুরু বাড়ী থেকে খানিক দুরে জুবিলী স্কুলে। প্রাথমিক শিক্ষা শেষের পর বড় ভাইয়েরা তাকে কাকা শুধাংশু কুমার বিশ্বাসের তত্ত্বাবধানে কলকাতা শহর থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে চন্দননগরে পাঠিয়ে দেন। সেখানে ড. শীতল প্রসাদ ঘোষ আদর্শ বিদ্যালয়ে পড়ার সময় পরিচয় হয় মূকাভিনয় বা মাইমের আর্টিষ্ট যোগেশ দত্তের সাথে। তার কাছে মাইম শেখা শুরু। পার্থ প্রতিম মজুমদার ১৯৬৬ থেকে ১৯৭২সাল পর্যন্ত কলকাতার যোগেশ দত্ত মাইম একাডেমীতে মাইমের উপর শিক্ষাগ্রহণ করেন৷

১৯৭২ সালে ভারতের চন্দননগর থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন৷ ১৯৭২ সাল থেকে১৯৭৬ সাল পর্যন্ত ঢাকা মিউজিক কলেজে পড়াশুনা করেন। সেখান থেকে স্নাতক হন৷ ১৯৮১ও ১৯৮২ সালে মডার্ণ কর্পোরাল মাইমের উপর “ইকোল দ্য মাইম” নামে এতিয়েন দু্য ক্রু কাছে শিক্ষাগ্রহণ করেন৷ এরপর ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত মারসেল মার্সোর কাছে “ইকোল ইন্টারন্যাশনালি দ্য মাইমোড্রামা দ্য প্যারিস” এ মাইমের উপর উচ্চতর শিক্ষাগ্রহণ করেন৷

patrtha-hasina

ফ্রান্স সরকারের শেভালিয়র (নাইট) পুরস্কার গ্রহণ করছেন পার্থ প্রতিম মজুমদার

কর্মজীবন

পার্থ প্রতিম মজুমদার পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময়ে মূকাভিনয় নিয়ে গৌরবমন্ডিত করেছেন বাংলাদেশের পতাকাকে। ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) দুটি অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো মূকাভিনয় প্রদর্শন করেন তিনি৷ পরবর্তীতে ১৯৭৫ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৪৮ বার মাইম প্রদর্শন করেন৷ এছাড়া ঢাকার ড্রামাটিক আর্টস স্কুলে মাইমের শিক্ষকতার পাশাপাশি বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন থিয়েটার গ্রুপের ছেলেমেয়েদের নিয়ে মাইমের উপর কর্মশালা পরিচালনা করেন৷

১৯৮২ থেকে১৯৮৫ সাল পর্যন্ত  তিনি প্যারিসের বিভিন্ন থিয়েটারে মোট ২৬টি শো করেন। এছাড়া লন্ডনে ২টি, গ্রীসে ২টি এবং স্পেনে মাইমের ২টি শো করেন। ১৯৮৪ সালের জুলাই মাসে মারসেল মার্সোর সাথে আমেরিকা যান এবং সেখানে মার্সোর নির্দেশনায় ” ইকোল ইন্টারন্যাশনাল ডি মাইমোড্রামা ডি প্যারিস-মারসেল মার্সো” নামে একটি শো করেন৷ ১৯৮৫ সালের জুলাই মাসে পার্থ প্রতিম মজুমদার মারসেল মার্সোর কোম্পানি এবং “থিয়েটার দ্য লা স্পেহয়ার” এর সাথে যৌথ উদ্যোগে সারা ইতালিতে মাসব্যাপী “লে কারগো দ্য ক্রেপুসকুল” এবং ” আবিম” নামে দুটি মাইমোড্রামা প্রদর্শন করেন৷ এবছরগুলোতেই প্যারিসে দুটি ছোট বিষয়কে নিয়ে ক্যামেরার সামনে হাজির হন৷ এবং প্যরিসেই তাঁর কাজের উপর একটি বড় ভিডিও ধারণ করা হয়৷ এসময় ফ্রান্সের টেলিভিশনে তাঁর একটি কাজ প্রদর্শন করা হয়৷ এছাড়া লন্ডনে একটি ছোট ভিডিও ধারণসহ ‘বিবিসিতে’ তাঁর একটি কাজ প্রদর্শন করা হয়। ১৯৮৬ সালে মারসেল মার্সোর তত্ত্বাবধানে পার্থপ্রতিম মজুমদার মাইমের তত্ত্ব্ব বিষয়ক গবেষণা কাজের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন৷ এছাড়া তিনি বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মাইম প্রদর্শন করেন। তিনি ‘নিঃশব্দ কবিতার কবি’ বলেও পরিচিত। বাংলাদেশে এইডসের বিরুদ্ধে বেশ কিছু সচেতনতামূলক আয়োজেনও অংশ নিয়েছেন তিনি।

পুরস্কার ও সম্মাননা

  • কলকাতা যোগেশ মাইম একাডেমী থেকে “মাস্টার অব মাইম” উপাধি (১৯৮৭)
  • একক মূকাভিনেতা হিসেবে এথেন্স, নিউইয়র্ক, ডেনমার্ক, সুইডেনসহ সারা বিশ্বে বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃতি লাভ (১৯৮৮)
  • মালেশিয়ার সাংবাদিকদের কাছ থেকে “মাস্টার অব ওয়ার্ল্ড” সম্মাননা
  • লন্ডনে অনুষ্ঠিত বেঙ্গলি লেটারেচার ফেস্টিভালে একমাত্র বাঙালী অতিথি শিল্পী হওয়ার বিরল সৌভাগ্য (১৯৮৯)
  • ‘বার্দোতে’ ও ‘ননত্’ শহরের মেয়র কর্তৃক মেডেল প্রাপ্তি (১৯৯১)
  • নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত ফোবানা সম্মেলন ২০০০ বিশেষ সম্মাননা (২০০০)
  • বাংলা সাপ্তাহিক “পত্রিকা” থেকৈ ‘ইউকে মিলেনিয়াম এ্যওয়ার্ড ২০০০’
  • ফ্রান্সের জাতীয় থিয়েটারের মোলিয়ার অ্যাওয়ার্ড (২০০৯)
  • একুশে পদক (২০১০)
  • ফ্রান্স সরকারের শেভালিয়র (নাইট) উপাধি (২০১১)

(তথ্যসুত্র – wikipedia)

Check Also

third-eye-photographic-soci

আন্তর্জাতিক আলোকচিত্র প্রদর্শনী

মিডিয়া খবর:-       : নাজমুল হুদা নয়ন : থার্ডআই ফটোগ্রাফিক সোসাইটি আয়োজিত “বাংলাদেশ …

gomvira-utsab

শুরু হচ্ছে গম্ভীরা উৎসব

মিডিয়া খবর :- চাপাইনবাবগেঞ্জর গম্ভীরাকে ধরে রাখতে গড়ে তোলা হয়েছে জাতীয় ভিত্তিক সাংস্কৃতিক-সামাজিক সংস্থা ‘দিয়াড়’। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares