Home » চলচ্চিত্র » মাহিকে নিয়ে জাজের বক্তব্য
mahi

মাহিকে নিয়ে জাজের বক্তব্য

Share Button

মিডিয়া খবর :-

চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া ও নায়িকা মাহিয়া মাহিকে নিয়ে আলোচনায় সরগরম চলচ্চিত্র অঙ্গন। এবার জাজ মাহির বিষয়টি নিয়ে তাদের বক্তব্য জানিয়েছে। জাজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়েছে জাজ মাল্টিমিডিয়া।

জাজের বক্তব্য প্রকাশ করা হল-

ইদানীং খবরের কাগজে, ফেসবুক, online নিউজ পেপার এ জাজ ও মাহি কে নিয়ে অনেক কিছু লিখা হচ্ছে । কেও আবার ইনবক্স এবং কমেন্ট এ অনেক কিছু জানতে চাচ্ছে । তাদের সবার কাছে কিছু ব্যাপার পরিষ্কার করার জন্য জাজ এর এই লিখা । আশা করি এর পর এ বিষয় নিয়ে কেও আর কিছু জিজ্ঞাস করবেন না বা লিখালিখি করবেন না ।

১। মাহি জাজ এর বাহিরে কোন সিনেমা করতে পারবে না , জাজ এর সাথে মাহির এ রকম কোন চুক্তি কখন হয়নি । গত আড়াই বছরে মাহি জাজ এর বাহিরে ৪ তা সিনেমা করেছে । ভালবাসা রং এর পরপরই মাহি আবুল খাইয়ের বুলবুল পরিচালিত একটি সিনেমার কাজ শুরু করে যার নায়ক ছিল আরজু । সিনেমা টি মাঝ পথে বন্ধ হয়ে যায় । এর পর মাহি ওয়াজেদ আলী সুমন পরিচালিত “কি দারুণ দেখতে” সাফিউদ্দিন সাফি পরিচালিত “বিগ ব্রাদার” ও “ওয়ার্নিং” সিনেমা তে অভিনয় করে । এই তিনটা সিনেমা জাজ এর না । এর বাহিরে মাহি অভিনীত সব সিনেমাই ছিল জাজ এর । মুল কথা হল মাহি কে জাজ কখন বন্দি করে রাখেনি । সে সবসময়ই স্বাধীন ছিল এবং আছে ।

২। তবে নতুন যে কোন বাহিরের সিনেমার প্রস্তাব আসলে, মাহি জাজ কে অনুরদ করত গল্প শুনে দিতে এবং ডিরেক্টর ঠিক আছে কি না তা দেখতে । আর জাজ মাহির ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করে তা করত । কারন একজন নায়ক বা নায়িকার এক তা সিনেমা ফ্লপ করলে , তার ক্যারিয়ারে ভাল প্রভাব পড়ে । তাই তার কোন সিনেমা যাতে ফ্লপ না করে সেই দিকে মাহি ও জাজ খুব সতর্ক থাকত ।

৩। মাহি নিজেও বাহিরের প্রডাকশন এ কাজ করে স্বচ্ছন্দ বোধ করত না, কারণ অন্য প্রডাকশন জাজ এর মত এতো বিশাল আয়োজন দিয়ে সিনেমা করে না । মাহি কে জিজ্ঞাস করেন, উনি নিজেই শিকার করবে ।

৪। কিন্তু জাজ কখন মাহি ছাড়া কোন সিনেমা করেনি । আর জাজ মূলত নায়িকা কেন্দ্রিক সিনেমা করে । জাজ এর ১১ টা সিনেমার ৯ টি ছিল নায়িকা কেন্দ্রিক । এক জন নায়িকা কে প্রতিষ্ঠিত হতে তাকে নায়িকা কেন্দ্রিক সিনেমা করতে হবে, অথবা তাকে ঘিরে গল্প থাকতে হবে । জাজ মাহি কে সব নায়ক ও নায়িকা উপড়ে নেওয়ার জন্য তাই করেছে। এখন মাহির উপড়ে বাংলাদেশে একজন শিল্পী আছে, উনি সাকিব খান । যদি আজ জাজ ও মাহির মাঝে এই দুরুত না হতো, ইনশাল্লাহ মাহি এই বছর শাকিব খান কে ও ছাড়িয়ে যেতে পারত । শাকিব খানের এক মাত্র হুমকি ছিল মাহি ।

৫। মাহির ভিতর ও শিল্পীর খুদা ছিল , আর সেই খুদা থেকেই মাহি জাজ এর সব সিনেমাই করতে চাইত, ও বাহিরের সিনেমার প্রতি কোন আগ্রহ ছিল না ।

৬। জাজ ও মাহির মাঝে কিছু ভুল বোঝা বুঝি সৃষ্টি হয় । তাই জাজ মাহি কে বাদ দেয় । এর মাঝে নতুন নায়িকার আগমন বা অন্য কিছু না ।

৭। জাজ বাংলাদেশের সিনেমা এগিয়ে নিতে এবং বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে বধ্য পরিকল্পিত । জাজ যা করে তা সুদূর পরিকল্পনা নিয়ে করে ।

৮। বাংলাদেশের সিনেমা কে এগিয়ে নিতে জাজ কে বছরে কম পক্ষে ১২টি সিনেমা তৈরি করতে হবে । কিন্তু একজন নায়ক বা নায়িকা বছরে ৫টির বেশি সিনেমা করতে পারে না । তাই বছরে ১২টি সিনেমা বানানোর জন্য জাজ এর কমপক্ষে ৩ জন নায়ক ও ৩ জন নায়িকা প্রয়োজন । তাই জাজ আরও ২ টি নতুন মুখ উপহার দিয়েছে ।

৯। বাংলাদেশের সিনেমাকে এগিয়ে নিতে হলে সব দিক থেকে এগিয়ে নিতে হবে । এর মধ্যে নিচের কাজ গুলি উল্লেখযোগ্য
ক) নতুন শিল্পী ও কলাকশুলি তৈরি করা
খ) আর্টিস্ট ম্যানাজমেন্ট সিস্টেম
গ) বাজেট বাড়ানোর জন্য যৌথ প্রযোজনা
ঘ) মধ্যবিত্ত, উচ্চ বিত্ত সহ বড় একটা জনগোষ্ঠী কে পুনরায় হল মুখি করা
ঙ) বাংলদেশের সিনেমা সারা বিশ্বে এক সাথে মুক্তি দেওয়া

ক) নতুন শিল্পী ও কলাকশুলি তৈরি করাঃ
নতুন নায়ক ও নায়িকা প্রতিষ্ঠিত করা । গত আড়াই বছরে মাহি বাপ্পি, শুভ, সায়মন, শিপন, শুধু এরাই কম বেশি বাংলা চলচিত্রে প্রতিষ্ঠা পেয়েছ । কিন্তু এর বাহিরেও অনেক ভাল ও প্রতিভাবান ও সুন্দর বা সুন্দরী অভিনেত্রী এসেছে, কিন্তু যথাযথ সুযোগের অভাবে নিজের স্থান করে নিতে পারে নাই। তাই জাজ তাদের সেই যথাযথ সুযোগ দিয়ে প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে । এবং যৌথ প্রযোজনার মাধ্যমে তাদের সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত করার চেষ্টা করছে ।

খ) আর্টিস্ট ম্যানাজমেন্ট সিস্টেমঃ
শুদু সুযোগ দিয়েই দায়িত্ব শেষ করলেই হবে না । তাদের যথাযথ ভাবে পরিচালনা করতে হবে , যা এখন বলিউড বা টালিউড এ হচ্ছে । আর্টিস্ট এর ম্যানেজার কোম্পানি এর দায়িত্ব পালন করছে বড় বড় প্রডাকশন হাউস । ঠিক সেই ভাবে জাজ এখন শিপন, নুসরাত ফারিয়া ও জলি এর ম্যানেজার এর দায়িত্ব পালন করছে । এতে শিল্পী এবং প্রডাকশন হাউস দুই পক্ষই লাভবান হচ্ছে ।
গ) বাজেট বাড়ানোর জন্য যৌথ প্রযোজনাঃ
বাংলদেশে একটা সিনেমা সুপার হিট হলে ১.৫ কোটী টাকা ব্যাবসা করতে পারে। আর সুপার ডুপার হিট হলে ২ কোটী টাকা পর্যন্ত ব্যাবসা করতে পারে । তাই এখানে ৩ কোটী টাকার সিনেমা বানানো সম্ভব নয় । আর বাজেট বড় না হলে বড় সিনেমা বানানো সম্ভব নয় । তাই ভাল সিনেমা এর জন্য যৌথ প্রযোজনার সিনেমা করা উচিত । অগ্নী এর বাজেট ৭ কোটী টাকা । শুধু বাংলাদেশ মার্কেট হলে কখনওই এই বাজেট এর সিনেমা বানানো সম্ভব হতো না ।
ঘ) মধ্যবিত্ত, উচ্চ বিত্ত সহ বড় একটা জনগোষ্ঠী কে পুনরায় হল মুখি করাঃ
কিছু বছর আগে আমরা মধ্যবিত্ত বা উচ্চ মধ্যবিত্ত শ্রেণিকে সিনেমা হল বিমুখ করে ফেলেছি । তাদের হল এ ফিরিয়ে আনতে হলে আমাদের ভাল সিনেমা বানাতে হবে এবং হল এর পরিবেশ উন্নত করতে হবে ।
ঙ) বাংলদেশের সিনেমা সারা বিশ্বে এক সাথে মুক্তি দেওয়াঃ
বাংলা সিনেমা এর বাজার বড় করতে হবে । সারা বিশ্বে আমাদের সিনেমা এক সাথে মুক্তি দিতে হবে । এটা বিচ্ছিন্ন ভাবে সম্ভব নয় । এক জন প্রযোজক এর পক্ষে সম্ভব নয় যে বিভিন্ন দেশে যোগাযোগ করবে । তাই জাজ, জুন ০১, ২০১৫ থেকে INTERNATION DISTRIBUTION WING খুলতে যাচ্ছে । এখান থেকে বাংলাদেশি সিনেমা কিছু কমিশন এর বিনিময়ে সারা বিশ্বে এক সাথে RELEASE করতে parbe ।

জাজ ভবিষ্যতের ভাবনা করে । পরিকল্পনা করে । কি ভাবে জাজ নিজেকে আগিয়ে নিয়ে যাবে, কি ভাবে বাংলা চলচিত্র কে আগিয়ে নিয়ে যাবে ।

তাই দয়া করে আমাদেরকে আমাদের মত কাজ করতে দেন । মাহি কে মাহির মত থাকতে দিন । মাহি অনেক ভাল, গুনি ও পরিশ্রমী অভিনেত্রী । এবং উনি নিজের কাজের প্রতি অনেক নিষ্ঠা । আশা করি মাহি বাংলা চলচিত্রে আরও অনেক দিন শক্ত অবস্থান নিয়ে থাকবে । আর মাহি সফল হলে আমরা ও খুশি কারণ মাহি জাজ এর ই মেয়ে এবং সারা জীবন জাজের মেয়েই থাকবে । জাজ সারা জীবন মাহি পাশে থাকবে তার সুখে দুখে ।
আমদেরও রইল মাহির প্রতি দোয়া ও শুভ কামনা । ধন্যবাদ,  সঙ্গে থাকুন ।।

 

 

Check Also

রীনা ব্রাউন

মুক্তি পাচ্ছে রীনা ব্রাউন

মিডিয়া খবর:- আগামী ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার স্টার সিনেপ্লেক্স প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশে চলচ্চিত্র …

Nusrat-Faria

শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার ধ্যাৎতেরিকি

মিডিয়া খবর :-  সব প্রতিক্ষার অবসান শেষে এবার শুটিং শুরু হল আরেফিন শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares