Home » তথ্য প্রযুক্তি » নম্বর ঠিক রেখেই অপারেটর বদলের সুবিধা দেবে বিটিআরসি
btrc

নম্বর ঠিক রেখেই অপারেটর বদলের সুবিধা দেবে বিটিআরসি

Share Button

মিডিয়া খবর:-

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) তত্ত্বাবধানে নম্বর ঠিক রেখেই অপারেটর বদলের সুবিধা অর্থাৎ মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) সেবা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংস্থার চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস।

বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস ২০১৫ উপলক্ষে রোববার বিটিআরসির কর্যারলয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মলনে তিনি এ কথা জানান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. ফয়জুর রহমান, বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) মো. আহসান হাবিব খানসহ সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সুনীল কান্তি বোস জানান, যদিও এ সেবা চালুর কথা ছিল সবগুলো অপারেটরদের সমন্বয়ে একটি কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে। যা কেন্দ্রয়িভাবে নিয়ন্ত্রণ করতো বিটিআরসি। এ উদ্দেশ্যে সেবা চালুর জন্য নানা উদ্যোগ, আলোচনা, নির্দেশনা ও গ্রাহকদের মতামত চাওয়ার পরও মোবাইল ফোন অপারেটরদের তেমন কোন আগ্রহ দেখা যায়নি। আর এ জন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সরাসরি বিটিআরসির তত্ত্বাবধানেই চালু করা হবে এ সেবা।

এজন্য ইতোমধ্যে খসড়া নীতিমালা তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এখন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর তৃতীয় পক্ষ বা দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে যোগ্য কোনো বেসরকারি সংস্থাকে এ দায়িত্ব দেওয়া হবে। পরবর্তীতে অন্যান্য প্রক্রিয়ার পর বিশ্বের অনেক দেশের মতো বাংলাদেশেও চালু হবে এমএনপি সেবা।

এমএনপি চালু হলে মাবাইল ফোন নম্বর ঠিক রেখেই অন্য অপারেটরের গ্রাহক হওয়ার সুবিধা পাওয়া যাবে। তারা বেছে নিতে পারবে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও সাশ্রয়ী কলরেটের অপারেটর। এতে অপারেটরদের মধ্যে প্রতিযোগিতার পাশাপাশি বাড়বে সেবার মান।

বিশ্বে ৭২ দেশে এ সেবা চালু রয়েছে। বাংলাদেশে এ সেবা চালু হলে তুলনামূলক বড় অপারেটরদের অনেক গ্রাহকই কম রেটে কথা বলার সুযোগ নিতে পারবেন অপারেটর পরিবর্তন করে। এতে ব্যবসায়ীকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বড় অপারেটররা। আর এ আশঙ্কাতেই এমএনপি সেবা চালুর বিষয়ে তারা গড়িমসি করছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১৩ জুন বিটিআরসি মোবাইল ফোন অপারেটরদের এমএনপি সুবিধা বাস্তবায়ন করতে নির্দেশনা জারি করে। নির্দেশনায় বলা হয়, সাত মাসের মধ্যেই এ সেবা  চালু করতে হবে। এ নির্দেশনা জারির দিন থেকে তিন মাসের মধ্যে এমএনপি সেবা শুরুর জন্য একটি কনসোর্টিয়াম গঠন করতে হবে।

বিটিআরসির একজন কমিশনার এই কনসোর্টিয়ামের বোর্ড মেম্বার থাকবেন। কনসোর্টিয়ামই এ সেবা চালুর ব্যয় বহন করবে। কনসোর্টিয়াম গঠনের তিন মাসের মধ্যে অপারেটরদের এমএনপি সিস্টেম স্থাপন করতে হবে এবং এর এক মাস পর পরীক্ষামূলকভাবে এ সেবা শুরু করতে হবে।

এ সেবা চালু করতে অপারেটররা গ্রাহকদের কাছ থেকে ৫০ টাকার বেশি নিতে পারবেন না। এমএনপির জন্য গ্রাহকদের আবেদনের তিন দিনের মধ্যে এ সেবা দিতে হবে এবং কোনো গ্রাহক যদি একবার অপারেটর বদলের পর আবারও অপারেটর বদল করতে চান তাহলে তাকে ৪৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু সেই নির্দেশনা কার্যকর হয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দিবসটি পালন উপলক্ষে বাংলাদেশ ডাক অধিদপ্তর একটি স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করছে। এ ছাড়াও সেমিনার, শোভাযাত্রাসহ ১৮ ও ১৯ মে দুই দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন প্রতিষ্ঠান-বিটিআরসি, বিটিসিএল, টেলিটক, বাংলাদেশ ডাক অধিদপ্তর, মোবাইল অপারেটরসহ টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান।

 

Check Also

digital world

শুরু হল তিন দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড মেলা

মিডিয়া খবর :- বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ডিজিটাল মেলা ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৬” শুরু হচ্ছে আজ থেকে। ডিজিটাল …

robi airtel

রবি-এয়ারটেল এক হচ্ছে

মিডিয়া খবর :- মোবাইল অপারেটর রবি-এয়ারটেলের একীভূতকরণের (মার্জার) বিষয়ে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares