Home » ইভেন্ট » অনুদানের চলচ্চিত্র বনাম আন্তর্জাতিক মানের তথ্যচিত্র- নোমান রবিন
images

অনুদানের চলচ্চিত্র বনাম আন্তর্জাতিক মানের তথ্যচিত্র- নোমান রবিন

Share Button

ঢাকা, ২ মে:-

বিশ্বতথ্য যাদুঘর বলতে আমরা বুঝি গুগুল এবং ইউটিউবকে। আপনি এখন ইউটিউবে অন্য কোন দেশের ইতিহাস সম্পর্কীত তথ্যের জন্যে সার্চ দেন, দেখবেন শতশত তথ্যচিত্র বা ডকুমেন্ট্রি পাবেন। সে গুলো দেখতে ভালোই লাগে। তারা কি সুন্দর করে নিজেদের দেশ তথা দেশের অতীতকে তুলেধ রছে। সে অতীত যেমনি হক, তার ভেতর থেকে ভাল ও শিক্ষনীয় বিষয়গুলোকে নিয়ে বানাচ্ছে তথ্যচিত্র বা সিনেমা। কতো অল্প সময়ে শত পৃষ্ঠার লেখা মাত্র কয়েক মিনিটে নিখুত ভাবে জীবন্ত করে তুলছে!! কতো কিছুই না জানতে পারছি। বাংলাদেশ নিয়ে সার্চ দেন! দেখুন! কি পাওয়া যায়?! অসংলগ্ন ভিডিওতে ভরা। কেন? ও আচ্ছা! এখন বলবেন, ইয়াং পোলাপাইন সব নাটক ফাটক, সিনেমার পেছনে দৌড়ায়!! ডকুমেন্ট্রি করার পেছনে সময় কইতাগো! কেন? তাইলে আপনি সরকাররা কি করছেন? গত ৪২ বছরে কম করে হলে ও ১০০ থেকে ১৫০ টি চলচ্চিত্র অনুদানে বানাইছেন!! তার কয়টা জনগন দেখেছে? ৯৫% অনুদানের চলচ্চিত্রই জনগন দেখেন নাই। দেখবে কি করে? চলচ্চিত্রগুলো “মেইনস্ট্রিম” সিনেমা হলে চলার “অবস্থান” হারায় বলে মালিকরা অনুদানের চলচ্চিত্র চালায় না!! তা হলে কেন আমাদের টাকা দিয়ে অপরিকল্পিত বিনিয়োগ করবেন? সময় বুঝেইতো নামাজ পড়ে, নাকি? এই ১০০ থেকে ১৫০টি চলচ্চিত্রের টাকা দিয়ে কম করে হলেও ৩০০টি আন্তর্জাতিকমানের ডকুমেন্ট্রি বানান যেত! আমাদের নতুন প্রজন্ম আপনাদের কল্যাণে এই জাতিটাকে শুধুই মারামারি-হানাহানির জাতি হিসাবে দেখছেপ্ রতিনিয়ত! তাদেরকেশান্তনাদিতেএবংএইমানসিক অবস্থা থেকে করে আনতে সহায়ক হিসাবে, চলচ্চিত্রের চাইতে ইতিহাস ঐতিহ্যের উপর নির্মিত ডকুমেন্ট্রি গুলো বেশি ভূমিকা রাখে।
পলিমাটির এই বাংলায় পাল সভ্যতা, আর্য সম্প্রদায়ের ইতিহাস, ময়নামতি, মহাস্থানগড়ের ইতিহাস সহ কত শতশত ইতিহাস ঐতিহ্যে ভরপুর! আছে তিতুমীর, সূর্যসেন, প্রীতিলতাসহ শতবীর গাঁথা। এই যুগে এই ইতিহাস গুলো কি শুধুই বইয়ের পাতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে? সময়ের সাথে নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে হবে না? এইগুলো নিয়ে কি অন্যদেশের নির্মাতারা এসে কাজকরবে? কেন? তাদের কি ঠ্যাকা পড়েছে? এই ডিজিটাল যুগে বই এর পাশাপাশি আমরা ভিডিও দ্বারাই বেশি প্রভাবিত! আপনাদের যাদের প্রচুর অর্থ  আছে, তারা সন্তানদের দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিচ্ছেন, কিন্তু বাকি ৮০% ভাগ মানুষের সন্তানরাতো এইদেশেই বড় হচ্ছে। কিন্তু এই ব্যাপারে এই দেশের কোন সরকার যুগ উপোযোগী সবকিছু করছেন না ,শুধুই অবহেলা ! কেন এই সামান্য ব্যাপারটা নিয়ে ভাবেন না? যা কিনা জনগনের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে, অন্যথায় নবপ্রজন্মকে বঞ্চিত করা হচ্ছে! একটি ভালমানের প্রিওডিকাল ডকুমেন্ট্রি বানাতে সর্বোচ্চ ১০ থেকে ২০ লক্ষ টাকা লাগে। যা কিনা অনুদানের একটি অপ্রয়োজনীয় চলচ্চিত্রের বাজেটের থেকে প্রায় ৫০% কম। তাহলে কি দরকার আমাদের ওই সমস্ত চলচ্চিত্র নির্মান করে যা জনগন কে দেখানো যাবেনা! নির্মান যখন করবেনই, তাহলে প্রয়োজনীয় কিছু বানান। যা জনগনকে দেখানো যাবে পাশাপাশি আর্ন্তজাতিক ভাবেও প্রদর্শন করা যাবে। দেশ ও জাতীর প্রতিনিধিত্ব করবে। এখনও সময় আছে এই সামান্য জিনিষ নিয়ে অল্প করে হলেও গঠনমূলক ভাবনা ভাবুন!! প্লিজ!!!

https://www.youtube.com/watch?v=RQvt6JFd-uU&hd=1
https://www.youtube.com/watch?v=MazI9dFA6ME&hd=1

আর আমরা যারা নতুন যুগের মেইনস্ট্রিম চলচ্চিত্র বানাই, তাদের জন্যেও একটু ভাববেন। প্রতিটি সিনেমা হলে বাধ্যতামুলক ডিজিটাল “টিকেটিং এবং হিসাব পদ্ধতি” আইন হিসাবে চালু করেন! দেখবেন দুধ’কা দুধ পানি’কা পানি হয়ে যাবে!

লেখক-সমাজকর্মী ও স্বাধীন চলচ্চিত্রকার

Check Also

Nusrat-Faria

শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার ধ্যাৎতেরিকি

মিডিয়া খবর :-  সব প্রতিক্ষার অবসান শেষে এবার শুটিং শুরু হল আরেফিন শুভ ও নুসরাত ফারিয়ার …

rawnak-hasan

রওনক হাসানের খারাপ মেয়ে ভালো মেয়ে

মিডিয়া খবর :- মঙ্গলবার থেকে নিজের প্রথম স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের কাজ শুরু করেছেন অভিনেতা ও নির্মাতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares