Home » নিউজ » বিমর্ষ হৃদয়-সুজানা শুভ কামনা জানালেন একে অপরকে
hridoy-sujana

বিমর্ষ হৃদয়-সুজানা শুভ কামনা জানালেন একে অপরকে

Share Button

মিডিয়া খবর :-

নিজেদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৬ই এপ্রিল ডিভোর্সের মাধ্যমে ৮ মাসের সংসার জীবনের অবসান ঘটান জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী হৃদয় খান ও মডেল-অভিনেত্রী সুজানা।

হৃদয়-সুজানার প্রকৃত ভক্তরা কিছুতেই বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না। মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে খোদ হৃদয় ও সুজানারও। সেটা তাদের সঙ্গে কথা বলে স্পষ্ট বোঝা গেছে। এদিকে ডিভোর্সের কারণ নিয়ে সুজানার বক্তব্য পাওয়া গেলেও হৃদয় বিচ্ছিন্ন ছিলেন মিডিয়া থেকে। এমনকি কারও ফোনও ধরছিলেন না তিনি। তবে ভক্ত, শুভানুধ্যায়ী ও মিডিয়ার কাছে বিষয়টি পরিষ্কার করতে ৬ই এপ্রিল রাতে একটি ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ করেন তিনি। এই ভিডিওর মাধ্যমে হৃদয় সুজানার সঙ্গে ছাড়াছাড়ির বিষয়ে অফিসিয়ালি বক্তব্য দেন। এই ভিডিও ক্লিপে তিনি বলেন, হ্যালো ফ্রেন্ডস, আপনাদের সবার উদ্দেশে আমার একটা কথা আমি বলতে চাই। আপনারা সবাই জানেন আমি প্রচণ্ড ভালবেসে সুজানাকে বিয়ে করেছি গত বছর পহেলা আগস্টে। কিন্তু আজ ৬ই এপ্রিল থেকে আমাদের আর সংসার করা হচ্ছে না। আমাদের আন্ডারস্ট্যান্ডিংয়ের কারণে আসলে সংসারটা আর হচ্ছে না। আমরা দুজনেই মিউচুয়ালি সেপারেশনে যাচ্ছি। আমার জন্য দোয়া করবেন সবাই। hridoy-sujধন্যবাদ। নিজের গাড়িতে বসে রেকর্ড করা এই ভিডিও ক্লিপটিতে কথা বলার সময় হৃদয়কে অনেক আবেগী ও বিমর্ষ দেখাচ্ছিল। হৃদয়ের ফেসবুক আইডি ও ফ্যানপেজে ভিডিওটি শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গে ভক্তরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে হৃদয়কে সান্ত্বনা জানিয়েছেন। হৃদয় নিজে কাছের ঘনিষ্ঠজনদেরও জানিয়েছেন, তিনি চান সুজানা সব সময় ভাল থাকুক। এদিকে হৃদয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে তার বাবা রিপন খান বলেন, এ বিষয়টিতে আমি তেমন কিছু বলতে চাই না। কারণ, এসব আমি জানতামই না। লোকমুখে বিয়ের কথা শুনেছিলাম। এখন শুনলাম ডিভোর্সের কথা। তবে হৃদয় আমার অনেক আদরের ছেলে। ও সব সময় ভাল থাকুক সেটা আমি চাই। আর কিছু দরকার নেই। ব্যাস।

এদিকে হৃদয়ের সঙ্গে ডিভোর্সের ঘটনায় সুজানাও বেশ ভেঙে পড়েছেন। সবকিছুই তার কাছে দুঃস্বপ্নের মতোই মনে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। বিমর্ষতা ঘিরে ধরেছে তাকে। ডিভোর্স ও হৃদয় সম্পর্কে সুজানা জানান, বিয়ের আগে এক রূপ, আর বিয়ের পর হৃদয়ের আরেক রূপ দেখেছি আমি। অনেক কষ্টে সহ্য করেছি। হৃদয় একতরফা কথা বলতো। একতরফা সিদ্ধান্ত নিতে চাইতো। আমার কাজের বিরোধিতা পর্যন্ত করত। আমি হৃদয়কে অনেক বোঝানোর চেষ্টা করেছি। লাভ হয়নি। ব্যর্থ হয়েছি। হৃদয় শুরু থেকে ওর বাবা-মা, ভাইবোনদের সঙ্গেও ভাল ব্যবহার করতো না। কিন্তু আমি সব সময় চাইতাম পরিবারের সঙ্গে ওর যোগাযোগ থাকুক। এ কারণে হৃদয়ের মা, ভাই-বোনদের সঙ্গে আমি প্রথমদিকে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছি। তাদের সঙ্গে মিশেছি। তারপরও হৃদয় নিজের পরিবারের প্রতি শ্রদ্ধা কিংবা ভালবাসা কিছুই  দেখায়নি। বিয়ের পর হৃদয় আমার পরিবারকেও অসম্মান করতো। এটা আমি মেনে নিতে পারি না। কারণ, আমি চাই আমার স্বামীকে সবাই ভাল জানুক, ওর সম্পর্কে সবাই ভাল বলুক। আবেগী কণ্ঠে সুজানা আরও বলেন, একজন মেয়ের সবচেয়ে বড় পাওয়া হচ্ছে স্বামী-সংসার। কতটুকু কষ্ট পেলে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তে যেতে বাধ্য হয়েছি সেটা আমি ছাড়া কেউ জানে না। তারপরও আমি চাই হৃদয় যেখানে থাকুক ভাল থাকুক। আমি চাই হৃদয় তার পরিবারের কাছে ফিরে যাক। সবাইকে নিয়ে সে ভাল থাককু, এই শুভ কামনা রইলো। আর আমার জন্য আপনারা সবাই দোয়া করবেন, যেন এই অনাকাঙ্ক্ষিত সময়টা কাটিয়ে উঠতে পারি।

(কৃতজ্ঞতা – দৈনিক মানবজমিন)

Check Also

bangobondhu

স্বাধীনতা, এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো

মিডিয়া খবর :- স্বাধীনতা, এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো – নির্মলেন্দু গুণ একটি কবিতা লেখা …

joybangla-consert

৭ মার্চ জয়বাংলা কনসার্টে ৭ ব্যান্ডদল গাইবে

মিডিয়া খবর :- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের দিনে এবারও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares