Home » নিউজ » শামসুজ্জামান খান ৭৫ পূর্তি সংবর্ধনাগ্রন্থ প্রকাশ

শামসুজ্জামান খান ৭৫ পূর্তি সংবর্ধনাগ্রন্থ প্রকাশ

Share Button

মিডিয়া খবর:-

সেলিনা হোসেন, মফিদুল হক ও মাহবুবুল হকের সম্পাদনায় অক্ষর প্রকাশনী শামসুজ্জামান খান ৭৫ পূর্তি সংবর্ধনাগ্রন্থ প্রকাশ করেছে।

১৪ই মার্চ ২০১৫ শনিবার বিকেল ৪:০০ বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে এই সংবর্ধনাগ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। প্রকাশনা উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সভাপতিত্ব করেন এমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাংলা একাডেমির পরিচালক শাহিদা খাতুন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন শামসুজ্জামান খানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন। গ্রন্থটির বিষয়ে আলোচনায় অংশ নেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, সরকারের সিনিয়র সচিব কামাল চৌধুরী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, শিল্পী হাশেম খান, ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন, প্রাবন্ধিক শান্তনু কায়সার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, কবি মুহাম্মদ নূরুল হুদা, জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি কবি মুহাম্মদ সামাদ, রাজনীতিবিদ মোনায়েম সরকার, জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ওসমান গণি, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক কবি অসীম সাহা, লেখক বেগম শামসুজ্জাহান নূর এবং কবি পিয়াস মজিদ। সংবর্ধনার উত্তরে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করেন শামসুজ্জামান খান। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অক্ষর প্রকাশনীর সত্বাধিকারী মো: আমিন খান।

বক্তারা বলেন, শামসুজ্জামান খান সাহিত্যচর্চায় যেমন বৈচিত্র্যের স্বাক্ষর রেখেছেন তেমনি অতিবাহিত করেছেন এক বর্ণাঢ্য জীবন। বাংলাদেশে আধুনিক ফোকলোর চর্চা ও গবেষণার ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। সততা, ন্যায়নিষ্ঠা, দৃঢ় আদর্শবাদ ও জাতীয় দায়িত্ববোধ থেকে দেশের সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গন ও প্রগতিশীল সামাজিক-রাজনৈতিক অভিযাত্রায় পালন করেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। তারা বলেন, ৭৫ বছর পেরিয়ে এখনো তিনি কর্মমুখর। ভবিষ্যতেও শামসুজ্জামান খানকে আমরা আমাদের শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনে একই রকম সক্রিয় ও কর্মচঞ্চল হিসেবে পাব বলে আশা করি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, শামসুজ্জামান খান তার বিদ্যাবত্তার গভীরতা এবং কর্মের সৃজন-সক্রিয়তার দ্বারা বাংলাদেশের সাহিত্য-সংস্কৃতির সকল কর্মকান্ডে এক অনিবার্য ব্যক্তিত্ব হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছেন। একই সঙ্গে তার বিনয় ও ব্যক্তিত্বের মাধুর্য সাধারণ মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপনে সহায়ক হয়েছে। তিনি আরও দীর্ঘদিন আমাদের জাতীয় জীবনকে আলোকিত করুন-এই প্রত্যাশা করি।

নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে শামসুজ্জামান খান বলেন, আজকের এই সংবর্ধনায় আমি অভিভূত। সবসময় চেষ্টা করেছি সততা ও নীতির সঙ্গে আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে। জীবনের এই যাত্রাপথে যারা আমার পাশে ছিলেন তাদের সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানাই। সেইসঙ্গে সামনের দিনগুলোতে একই রকমভাবে সাহিত্য-সংস্কৃতি জগতে সক্রিয় থাকতে আপনাদের সবার সহায়তা কামনা করি।

সভাপতির বক্তব্যে আনিসুজ্জামান বলেন, শামসুজ্জামান খানের ৭৫ বছর পূর্তিতে যে সংবর্ধনাগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে সেখানে অন্তর্ভুক্ত রচনাসমূহে মুক্তবুদ্ধির কথা বলা হয়েছে। আমি মনে করি, শামসুজ্জামান খানের জীবনেও মুক্তবুদ্ধির চর্চা একটি বিশিষ্ট দিক। মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হোক তার ভবিষ্যত পথচলা-এই প্রত্যাশা আমার।

Check Also

e kids

তৃতীয় মাই ই- কিডস্ ক্যাম্প-২০১৭

মিডিয়া খবর:- আগামী ২১-২২ জুলাই দেশে শিশু কিশোরদের জন্য ‘মাই ই কিডস’ আয়োজন করেতে যাচ্ছে …

ডিরেক্টরস গিল্ডের গুণীজনদের সম্মাননা

মিডয়া খবর :- ডিরেক্টরস গিল্ডের যে সকল সদস্য (জীবিত ও মৃত) এযাবত স্বাধীনতা পদক, একুশে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares