Home » চলচ্চিত্র » এফডিসি থেকে বিদায় নিলেন পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়
ড়হকজুব

এফডিসি থেকে বিদায় নিলেন পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়

Share Button

এফডিসি থেকে বিদায় নিলেন পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়

ঢাকা ২০ এপ্রিল:-

দুই বছর চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ শেষে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে বিদায় নিলেন পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৭ এপ্রিল তার দুই বছর চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ শেষ হয়। পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মেয়াদ শেষ হওয়ার দিন আমি সরকারের কাছে আমার দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছি। এখন সরকার আমার দায়িত্বের মেয়াদ বাড়াবেন কি-না জানি না। এদিকে চলচ্চিত্র সংগঠনের নেতা ও চলচ্চিত্রকাররা এখন একজন দক্ষ সাংস্কৃতিক কর্মীকে এ সংস্থার এমডি পদে নিয়োগ দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন। এদিকে বৃহস্পতিবার তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব হারুনুর রশীদকে ভারপ্রাপ্ত এমডি হিসেবে এফডিসিতে নিয়োগ দিয়েছে সরকার।

উল্লেখ্য সিনেমা বা চলচ্চিত্র নির্মাণে একমাত্র বাংলাদেশের একমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠান হলো ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন’ যা সবার কাছে ‘এফডিসি’ নামেই অধিক পরিচিত। সিনেমাপ্রেমী মানুষের কাছে এফডিসি মানেই স্বপ্নের একটি জগৎ। প্রিয় নায়ক বা নায়িকাদের নিয়ে ভক্তদের আগ্রহের শেষ নেই। আর এখানেই কাজ করেন তাঁদের স্বপ্নের তারকারা। রাজধানী ঢাকার তেজগাঁও এলাকায় অবস্থিত বিএফডিসি হলো ঢাকাই সিনেমার কলাকুশলীদের কাজের কেন্দ্রস্থল। সাত একর জমির ওপর এই প্রতিষ্ঠানটি অবস্থিত। বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পের প্রতিষ্ঠা, বিকাশ ও প্রসারের লক্ষ্যে ১৯৫৭ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান আইন পরিষদে এফডিসি প্রতিষ্ঠার আইন পাস হয়। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর তেজগাঁওয়ের বিজি প্রেসে স্থাপিত হয়েছিল সরকারের চলচ্চিত্র শাখা। কিন্তু এখানে পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র নির্মাণের মতো কোনো স্টুডিও ছিল না। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের পর এ দেশে বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ স্টুডিও স্থাপনের দাবি জোরালো হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৫৭ সালের ৩ এপ্রিল প্রাদেশিক আইন পরিষদের অধিবেশনের শেষ দিনে তৎকালীন শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান ‘পূর্ব পাকিস্তান চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থা’ বিল উত্থাপন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠা পায় এফডিসি, যেখানে বর্তমানে চলচ্চিত্রের শুটিং, ডাবিং, রেকর্ডিং, প্রিন্টিংসহ নানাবিধ কাজ করা হয়। এফডিসিতে রয়েছে একটি প্রশাসনিক ভবন, একটি শব্দগ্রহণ ভবন, একটি ডিজিটাল সাউন্ড কমপ্লেঙ্, দুটি সম্পাদনা ভবন, একটি ঝরনা স্পট, একটি সুইমিং পুল, একটি পার্ক এবং তিনটি খোলা জায়গা।

Check Also

nuru miah o tar beauty driver

নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার

মিডিয়া খবর :- গত ২৪ জানুয়ারি কোনও কর্তন ছাড়াই বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায় …

tanha, shuva

ভাল থেকো চলচিত্রের পোস্টার প্রকাশ

মিডিয়া খবর:- প্রকাশ হল জাকির হোসেন রাজুর নির্মিতব্য চলচিত্রের পোস্টার। জাকির হোসেন রাজুর নির্মাণে আসছে নতুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares