Home » লাইফ স্টাইল » রাঙ্গুনিয়ার পাহাড়ে ক্যাবল কার

রাঙ্গুনিয়ার পাহাড়ে ক্যাবল কার

Share Button

মিডিয়া খবর:-          -: রেজাউল করিম:-

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার চন্দ্রঘোনা কোদালা বনবিট এলাকার সবুজ পাহাড় আর শান্ত লেকের উপর দিয়ে ২.৪ কিলোমিটার পথে চলাচল শুরু করলো ১২টি ক্যাবল কার।

দেশের দীর্ঘতম এই ক্যাবল কারের উদ্বোধন করেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান, সাবেক পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। সাবেক পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের উদ্যোগে প্রায় ৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে রাঙ্গুনিয়ার শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারি পার্কে ক্যাবল কার প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়।  

ক্যাবল কার উদ্বোধন ও জনসাধারনের বিনোদনের জন্য খুলে দেওয়া উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই সমগ্র রাঙ্গুনিয়ায় উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়। পর্যটন উপ-শহর কাপ্তাইয়ে প্রবেশের আগে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শেষ সীমান্তে মনোরম পরিবেশে স্থাপিত শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারি পার্ক বিনোদনপ্রেমীদের জন্য নতুন সাজে সজ্জিত হয়।

এই পার্কের প্রকল্প পরিচালক ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগীয় কর্মকর্তা বিপুল কৃষ্ণ দাশ জানান, রাঙ্গুনিয়া উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের নিশ্চিন্তাপুরে রাঙ্গুনিয়া ফরেস্ট রেঞ্জের কোদালা বনবিট এলাকায় অ্যাভিয়ারি পার্কটি ২০১৩ সালের ১১ নভেম্বর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পর পরই এটি বিনোদন পিয়াসীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। কিন্তু যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে উদ্বোধন করা হয়নি পার্কে স্থাপিত দেশের দীর্ঘতম ক্যাবল কার। গত এক বছরে সব কাজ সুচারুরূপে সম্পন্ন করে বৃহস্পতিবার ক্যাবল কার উদ্বোধন এবং সর্বসাধারনের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে খুলে দেওয়া হয়। ২.৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ক্যাবল কারে চড়তে মাথাপিছু টিকিটের মূল্য রাখা হয়েছে ২০০ টাকা।

শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারি পার্কটি বাংলাদেশের একমাত্র পাখিশালা। এতে যোগ হয়েছে দেশি প্রজাতির পাখির পাশাপাশি আফ্রিকার পলিক্যান, ইলেকট্রাস প্যারট, সোয়ান, রিং ন্যাক, ম্যাকাউ, টার্কি। পাশাপাশি এই পার্কে ক্যাবল কার স্থাপন হওয়ায় দেশের মানুষের বিনোদন জগতে নতুন মাইলফলক রচিত হচ্ছে। পার্কের অভ্যন্তরে সড়ক, লেক, রিটার্নিং ওয়াল, গেস্ট হাউজ, ফুট ব্রীজ, গুহা, পাখি, ময়ূরসহ বিভিন্ন দেশি-বিদেশি পাখির বিচরণের খাঁচা, অ্যামিউজমেন্ট, গোলঘর, দোলনা, স্লিপিং পয়েন্ট রয়েছে। আম, জাম, বহেরা, ডুমুর, জামরুল, আমলকি, হরিতকি, চাপালিশ, তেতুলসহ প্রায় অর্ধশত প্রজাতির দেশিয় ও বনজ জাতের ফলের চারা রোপনের মাধ্যমে পাখির খাদ্য উৎপাদনে সমৃদ্ধ করা হয়েছে এই অ্যাভিয়ারিকে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অ্যাভিয়ারি পার্কের প্রকল্প পরিচালক ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগীয় কর্মকর্তা বিপুল কৃষ্ণ দাশ।

( courtesy www.risingbd.com)

Check Also

sa world

ফ্যাশন হাউজ এসএ ওয়ার্ল্ডের নতুন শাখা উদ্বোধন

মিডিয়া খবর:- ২৪ জুন শুক্রবার ঢাকার মিরপুরে ‘এসএ ওয়ার্ল্ড’এর দ্বিতীয় এক্সক্লুসিভ শাখার উদ্বোধন হল। বিশ্বখ্যাত …

sa world

লাইফ স্টাইল শপ এসএ ওয়ার্ল্ডের নতুন শাখা মিরপুরে

মিডিয়া খবর :- বিশ্বখ্যাত ব্রান্ডেড পণ্যসমুহের বিশাল সমাহার নিয়ে ফ্যাশন হাউজ ‘এসএ ওয়ার্ল্ড’এর দ্বিতীয় এক্সক্লুসিভ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares