Home » নিউজ » ১ জানুয়ারি পাঠ্যপুস্তক উৎসব

১ জানুয়ারি পাঠ্যপুস্তক উৎসব

Share Button

মিডিয়া খবর:-           

নতুন বই শিশুদের মনে এক নতুন উদ্দীপনা নিয়ে আসে। ঘরে ঘরে বয়ে আনে উৎসবের আমেজ। নতুন বই পড়ব আবার নতুন বই পড়ব। বইয়ের মধ্যে লুকিয়ে থাকা স্বপ্নগুলো ধরবো-  দেশব্যাপী এ স্বপ্ন ধরার উৎসব করতে বরাবরের মতো এবারো ১ জানুয়ারি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিতরণের সকল প্রস্তুতি প্রায় চূড়ান্ত করে এনেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে সারাদেশের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রাথমিক স্তরের প্রায় ৭৮ শতাংশ এবং মাধ্যমিক স্তরের প্রায় ৯৮ শতাংশ বই পৌঁছে গেছে। মাসের বাকি কয়েকদিনের মধ্যে উভয় স্তরের শতভাগ বই পৌঁছে যাবে।

বিনামূল্যের বই মুদ্রণ ও বিতরণ পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল কাশেম মিয়া বলেন, এখন পর্যন্ত প্রাথমিক স্তরের ৭৮ শতাংশ আর মাধ্যমিক স্তরের ৯৫ শতাংশ বই ইতিমধ্যে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। প্রাথমিকের বইয়ের কাজ শুরুর আগে মাধ্যমিকের কাজ শুরু হওয়ায় মাধ্যমিক স্তরের বই বিতরণ এগিয়ে রয়েছে। তবে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই প্রাথমিকের শতভাগ বই পৌঁছে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। চেয়ারম্যান জানান, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের পাশাপাশি জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারাও বই সংরক্ষণ কাজ নিয়মিত মনিটরিং করছেন। পাশাপাশি এনসিটিবির কর্মকর্তারা রাজধানীর বিভিন্ন প্রেসে চলমান বইয়ের মুদ্রণ কাজ নিয়মিত মনিটরিং করছেন।

১ জানুয়ারি দেশব্যাপী বই উৎসব করার সকল প্রস্তুতি প্রায় চূড়ান্তই বলে মন্তব্য করেন এনসিটিবি চেয়ারম্যান। বিনামূল্যের পাঠ্যবই নিয়ে এ উৎসবের আনন্দকে কিছুটা ম্লান করে দিচ্ছে প্রাক-প্রাথমিক স্তরের বই মুদ্রণ ও বিতরণ পরিস্থিতি। প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের বই মুদ্রণ হয়ে ইতিমধ্যে বিভিন্ন স্থানে পৌঁছে গেলেও প্রাক-প্রাথমিক স্তরের বই এখনো মুদ্রণই হয়নি। তাই বছরের শুরুতে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা নতুন বই নিয়ে উৎসবে মাতলেও প্রাক-প্রাথমিকের ক্ষেত্রে তা হচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে অসন্তুষ্টি রয়েছে এনসিটিবির কর্মকর্তাদের মধ্যেও।

সূত্র মতে, প্রাক-প্রাথমিক স্তরের বই-খাতা মুদ্রণের দরপত্রের সময় এগিয়ে আনলে এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। প্রাক-প্রাথমিক বইয়ের কারণে পাঠ্যপুস্তক উৎসবে কোনো ব্যাঘাত ঘটবে না বলে মনে করেন এসটিবির বিতরণ নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) মোস্তাক হোসেন ভুঁইয়া। তিনি বলেন, প্রাক-প্রাথমিকের বই মুদ্রণকারীর প্রতিষ্ঠানকে ৩১ জানুয়ারি মধ্যে বই দিতে হবে। বই-খাতা ও এর উপকরণ মিলিয়ে এর সংখ্যা হচ্ছে ৬০ লাখ। এ সংখ্যা ছাপতে মুদ্রণকারি প্রতিষ্ঠানের ৮ থেকে ১০ দিনের বেশি লাগবে না। এছাড়া প্রাক-প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের কোন বই দেওয়া হয় না। বই স্কুলে থাকে, শিক্ষকরা বইয়ের নির্দেশনা অনুযায়ি শ্রেণী শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এছাড়া জানুয়ারির সারা মাসজুড়েই প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা ভর্তি হয়। তাই এ স্তরের বই মুদ্রণ নিয়ে খুব একটা অসুবিধা হবে না বলেই মনে করেন এ কর্মকর্তা।

এনিসিটিবির ২০১৫ শিক্সাবর্ষের বিভিন্ন স্তরের বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক বিতরণের গত বৃহস্পতিবারের তথ্য চিত্র থেকে জানা যায়, এবার প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, ইবতেদায়ি, দাখিল ও দাখিল ভোকেশনাল, মাধ্যমিক ও এসএসসি ভোকেশনাল স্তরে সারাদেশের ৪ কোটি ৪৪ লাখ ৫২ হাজার ৩৭৪ শিক্ষার্থীর জন্য ছাপা হচ্ছে ৩২ কোটি ৫৮ লাখ ৭৯ হাজার ৬৭৪ কপি বই। এর মধ্যে প্রাথমিক স্তরের ২ কোটি ৩১ লাখ ৭০ হাজার ৩৫১ শিক্ষার্থীর জন্য ছাপা হচ্ছে ১১ কোটি ৪৩ লাখ ৪৮ হাজার ৮৪৪ কপি বই। ইতিমধ্যে এ স্তরের ৮ কোটি ৯০ লাখ ৬ হাজার ৪২২ কপি বই ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়ে গেছে। শতভাগ বইয়ের মধ্যে এ স্তরের বই সরবরাহ করা হয়েছে ৭৭ দশমিক ৮৪ শতাংশ। ইবতেদায়ি স্তরের ২৫ লাখ ৩ হাজার ৩২ শিক্সার্থীর জন্য ১ কোটি ৭৯ লাখ ৬৯ হাজার ৪২০ কপির শতভাগ বই ইতিমধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে। দাখিল ও দাখিল ভোকেশনাল স্তরের ২১ লাখ ২৬ হাজার ৯৯৬ শিক্ষার্থীর জন্য ৩ কোটি ৮ লাখ ৬০ হাজার ৯৩৫ কপি বইয়ের মধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে ২ কোটি ৭৮ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫৫টি। এ স্তরের প্রায় ৯০ দশমিক ২০ শতাংশ বই সরবরাহ করা হয়েছে। মাধ্যমিক স্তরের ১ কোটি ৪ লাখ ৬০ হাজার ৮৯৩ শিক্ষার্থীর জন্য ছাপা হচ্ছে ১৪ কোটি ৮৫ লাখ ৫৫ হাজার ২৬২ কপি বই। মোট বইয়ের মধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে ১৪ কোটি ৪৫ লাখ ৮৯ হাজার ৬৭২ কপি। এ স্তরের সরবরাহ করা হয়েছে প্রায় ৯৭ দশমিক ৩৩ শতাংশ। এসএসসি ও ভোকেশনাল স্তরের ১ লাখ ৭৪ হাজার ৫৭৩ শিক্ষার্থীর জন্য বই ছাপা হচ্ছে ২১ লাখ ১২ হাজার ১৫৫ কপি। ইতিমধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে ২০ লাখ ৪ হাজার ১০ কপি বই। এ স্তরে এখন পর্যন্ত সরবরাহ করা হয়েছে ৯৪ দশমিক ৮৮ শতাংশ। ২০১০ সাল থেকে সারাদেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাঠ্যবই দিচ্ছে সরকার।

Check Also

নননপুরের মেলায় একজন কমলাসুন্দরী ও একটি বাঘ আসে

মিডিয়া খবরঃ          – সাজেদুর রহমানঃ- হাত ঘড়ির কাটা বলছে ২৮ এপ্রিল …

মাসুম আজিজ সুস্থ হয়ে উঠছেন

মিডিয়া খবরঃ-             -ঃ সাজেদুর রহমানঃ- সুস্থ হয়ে উঠছেন অভিনেতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares