Home » মঞ্চ » মহিলা সমিতিতে আজ পাইচো চোরের কিচ্ছা
paicho

মহিলা সমিতিতে আজ পাইচো চোরের কিচ্ছা

মিডিয়া খবর :-

আজ ২৬ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় বেলী রোডে মহিলা সমিতির নাট্য মঞ্চে মঞ্চস্থ হবে ঢাকা পদাতিকের নাটক পাইচো চোরের কিচ্ছা।paicho

কাহিনী সুত্র- সংগ্রহ,  নাটক- কাজী চপল, নির্দেশনা- কাজী চপল

কাহিনী সংক্ষেপ
কোন এক দেশে ছিল এক রাজা, তার মেয়ের নাম ছিল মহেশ্বরী, উজিরের পরামর্শে মহেশ্বরী কইন্যের দেখভাল এর জন্য রাজা পাশের গ্রামের এক বুড়ির ছেলে কে নিযুক্ত করল, তার নাম কোটে। একদিন কোটে এক সন্ন্যাসীর মাধ্যমে জানতে পারে যে তার সাথেই মহেশ্বরী কইন্যের হবে বিয়ে। এই কথা শুনে বেজায় রেগে মহেশ্বরী কইন্যে কোটেরে দিল তাড়া। আর তাড়া খেয়ে কোটে গিয়ে উপস্থিত হল অন্য এক দেশে। ভাগ্যক্রমে সেই দেশের রাজার মৃত্যুর কারনে কোটে হয় সেই দেশের রাজা। আর তখনই সে মহেশ্বরী কইন্যেকে চুরি করে আনার জন্য পাইচো নামক এক চোরকে নিযুক্ত করে। পাইচো চোর নানা রকম ফন্দি ফিকির আঁটতে থাকে এবং বিভিন্ন কৌশল প্রয়োগ করে একে একে মহেশ্বরী রাজার হাট-বাজার চুরিকরা শুরু করে। রাজ্যবাসী, উজির, নাজির, পাত্তর, মিত্তর সবাইকে ভ্যাবাচ্যাকা খাইয়ে অবশেষে পাইচো চুরি করতে সফল হয় মহেশ্বরী কইন্যেকে এবং মহেশ্বরী কইন্যের পিতারূপে বিয়ের মাধ্যমে কইন্যেকে তুলে দেয় কোটের হাতে। ওদিকে মহেশ্বরী রাজা দখল করে কোটের রাজ্য এবং কোটেকে হত্যার জন্য উদ্যত হয় আর তখনই সে জানতে পারে মহেশ্বরী কইন্যের সাথে কোটের বিয়ে হয়ে গেছে। অবশেষে সেও মেনে নেয় তাদের বিয়ে। 
আমাদের অনেক মূল্যবান ধন সম্পদ যাতে চুরি না যায় সে ব্যাপারে সদা সচেষ্ট থাকি, আপ্রান চেষ্টা করি এই সম্পদগুলো ধরে রাখতে, কিন্তু মানবত্মা যখন উড়ে যাবে, তখন তাকে আমরা কিভাবে ধরে রাখব। তার জন্য তো কিছু কাজ অবশ্যই করা দরকার। সমগ্র নাটকটি বর্ণনা করেন একজন কথক, আর পাত্র পাত্রীরা এর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করে।

নির্দেশকের কথা
সমগ্র বাংলাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে অসংখ্য সাংস্কৃতিক ঊপাদান। বাংলার লোকাঙ্গনে লালিত এই সব সাংস্কৃতিক ঊপাদানই আমাদের ঐতিহ্য, আমাদের শেকড়। কৃষিভিত্তিক সভ্যতার এই দেশে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের শিল্পবোধ বড়ই চমৎকার, মধূর আর বিচিত্র সম্ভ^ারে পরিপূর্ণ। লোকমনে ফল্গুধারার মত উৎসারিত এই বৈচিত্রপূর্ণ পূর্ণাঙ্গ শিল্প ঊপাদানগুলোই আমাদের অতিপ্রিয় লোক সংস্কৃতি। খুলনা এলাকায় অসংখ্য লোক ঊপাদান রয়েছে, লোক নাটক করব এই ভাবনাতেই লোক কাহিনী পাইচো চোরের কিচ্ছা খুঁজে বের করা। বিজয় সরকার, আলেক মাতুব্বর, মোসলেম বয়াতী সহ খুলনা এলাকার অসংখ্য লোক কবি ভাটিয়ালী সুরে যে ভাব, রস আমাদের মনে গ্রথিত করেছেন তা এই নাটকের মূল সুর হিসেবে কাজ করেছে।
খুলনার লোক কাহিনীকে উপজীব্য করে গবেষণাধর্মী লোক নাটক পাইচো চোরের কিচ্ছা” মঞ্চস্থ করছে ঢাকা পদাতিক। একটি সহজ গল্পকে লোকাঙ্গীকের আশ্রয় নিয়ে সরল ভাবে উপস্থাপনের চেষ্টা করেছি মাত্র, সকলের ভাল লাগলে ধন্য হব।

সেট ডিজাউন
নাটকটিতে সেটের ব্যবহার নেই বললেই চলে, পেছনে শুধুমাত্র একটি বটগাছের পটচিত্র আছে, যাতে বোঝা যায় গ্রামের কোন এক বটতলায়, রাতের বেলা গানের আসর বসেছে। একদল গ্রামবাসী শুনছে সে গল্পগান। এ নাটকে কোন ভাঁড়ামী নেই। প্রত্যেকটা চরিত্র তাদের কর্মকাজে স্বাভাবিক ও সিরিয়াস। গ্রামের সত্যিকারের চিত্র তুলে ধরতে চেয়েছি। নগরে বসে লোকনাটক রচনা ও উপস্থাপন করে তাকে নগরায়িত করতে চাইনি। পাইচো চোরের কিচ্ছা আমার গবেষণার ফসল।
মেকাপ স্বাভাবিক। খালি মঞ্চে কুশীলবরা দর্শককে একটি কল্পনার রাজ্যে নিয়ে যায়, আর ঘটতে থাকে নানা ঘটনা।

পোষাক পরিকল্পনা
পোষাক পরিকল্পনা করেছেন কাজী শিলা। বাংলাদেশের গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষের নিত্য ব্যবহার্য পোষাক নির্বাচন করা হয়েছে। এই পোষাকের উপর ব্যবহার্য চরিত্রানুযায়ী কিছু পোষাক নির্বাচন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের কল্পনায় রাজা রানী রাজকন্যাদের যে পোষাক ও তার রঙ ধরা দেয় তার থেকে ধারনা নিয়ে পোষাক পরিকল্পনা করা হয়েছে। পোষাকে উজ্জ্বল রঙের ব্যবহার করা হয়েছে কারন বাংলাদেশের বিভিন্ন লোকনাটকে পোষাকে সাধারণত উজ্জ্বল রঙ ব্যবহৃত হয়।

নাটকের ভাষা
ভাষা এ নাটকের বড় সম্পদ এবং অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এটি খুলনা এলাকার লোককাহিনী, এ নাটকের পাত্রপাত্রীর কথা অর্থাৎ সংলাপ খুলনা এলাকার। বৃহত্তর খুলনা যশোহরের জনসাধারণের মুখের ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে নাট্যিক প্রয়োজনে। একটি চরিত্রের মুখের ভাষা বরিশাল থেকে নেয়া, পরিপূর্ণ খুলনার আঞ্চলিক ভাষায় নাটকটি করতে হলে বিশেষ প্রশিক্ষণেরও প্রয়োজন আছে।

কাহিনী – সংগ্রহ
নাটক ও নির্দেশনা- কাজী চপল
আলোক পরিকল্পনা- আমিনুর রহমান আজম 
পোষাক পরিকল্পনা- কাজী শিলা 
কোরিওগ্রাফী দীপা খন্দকার, কাজী শিলা 
সঙ্গীত- সংগ্রহ, রবীন বসাক, কাজী শিলা 
সঙ্গীতসুত্র- ফিরোজা বেগম, কাজী শহীদুল ইসলাম রূমী, আলম বয়াতী, মিজান বয়াতী, 
বিজয় সরকার, রসিক সরকার, মোসলেম বয়াতী, সাদেক বয়াতী, কানাইলাল হালদার সমীর।
সেট, প্রপস- সুমন, আসিফ, সজল
মঞ্চ ব্যবস্থাপনা – তন্বী/ কাজী স¤্রাট/ কিরণ
প্রধান সমন্বয়কারী- খোরশেদ আহাম্মদ
প্রযোজনা অধিকর্তা – গোলাম কুদ্দুছ

ঢাকা পদাতিকের কুশীলবের তালিকা
কথক -কাজী শিলা
মহেশ্বরী রাজা – যাকারিয়া কিরণ
মহেশ্বরী উজির – আলামিন
মহেশ্বরী কইন্যে -তন্দ্রা
কোটে -শ্যামল হাসান
সন্ন্যাসী – দেবাশীষ বড়–য়া/মাসুদ
ভিনদেশী রানী -নিপা
ভিনদেশী উজির -সজল
চোর-১ – আল আমিন
চোর-২ – আসিফ/সামিউল
চোর -৩ – তন্বি
চোর-৪ – সম্রাট
চোর-৫ – রিয়াজ
জনম চোর-৬ -সুমন
পাইচো চোরা – রাহাত
ঘোষক – আসিফ / সামিউল
পাটনী – স¤্রাট/সজল
বুড়ি – কাজী শিলা
বড় ভাই – রিয়াজ
ছোট ভাই – সম্রাট
ময়রা – আলামিন
ময়রার বাপ – দেবাশীষ বড়–য়া
বিয়াই রাজা -মাসুদআহম্মেদ
সৈনিক -১ – রিয়াজ
সৈনিক -২ -সম্রাট 
বেহারা – ১ – সজল
বেহারা – ২ – সুকান্ত
বেহারা – ৩ -সুমন
বেহারা – ৪ – সামিউল
নাতনী – সেতু
নানী – নিপা
বাওনী – তন্বি
বাওন – মাসুদআহম্মেদ
মা – ইকরা/ঐশি
বীর – সম্রাট/সুকান্ত

 

Check Also

শিল্পকলায় উৎসবের শেষদিনে সুরগাঁও

মিডিয়া খবর :- আজ রবিবার গঙ্গা যমুনা নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসরে শেষ দিনে মঞ্চায়িত হবে …

paicho

শিল্পকলায় আজ পাইচো চোরের কিচ্ছা

মিডিয়া খবর :- ঢাকা পদাতিকের আলোচিত প্রযোজনা পাইচো চোরের কিচ্ছা। গঙ্গা যমুনা নাট্যৎসবে  আজ মঙ্গলবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *