Home » চলচ্চিত্র » প্রামাণ্যচিত্র গণ আদালত সেন্সর পার করল
gonoadalot

প্রামাণ্যচিত্র গণ আদালত সেন্সর পার করল

মিডিয়া খবর :-

বিশিষ্ট নির্মাতা কাওসার চৌধুরীর প্রামাণ্যচিত্র ‘গণ আদালত’-এর সেন্সর হয়ে গেলো। কোন রকমের ছুরি-কাঁচি না চালিয়েই সেন্সর সার্টিফিকেট প্রদান করেছেন বাংলাদেশImage may contain: 1 person চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড।  ফেসবুকে এক স্টাটাসে এ তথ্য জানিয়েছেন সেই রাতের কথা বলতে এসেছি খ্যাত নির্মাতা কাওসার চৌধুরী । পাঠকের জন্য নিচে স্টাটাসটি দেয়া হল ।

১৯৯২ সালের ২৬ মার্চ একাত্তরের নরঘাতক গোলাম আজমের প্রতীকী বিচার হিসেবে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে যে গণআদালত অনুষ্ঠিত হয়েছিলো, তার ধারণকৃত ফুটেজ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মাণ শুরু করেন কাওসার চৌধুরী। ১৯৯২ সালের ২৬ মার্চ একাত্তরের নরঘাতক গোলাম আজমের প্রতীকী বিচার হিসেবে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে যে গণআদালত অনুষ্ঠিত হয়েছিলো, তার ধারণকৃত ফুটেজ নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ শুরু করেন কাওসার চৌধুরী।

{প্রামাণ্যচিত্র ‘গণ আদালত’-এর সেন্সর হয়ে গেলো আজ। কোন রকমের ছুরি-কাঁচি না চালিয়েই সেন্সর সার্টিফিকেট প্রদান করলেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড। উনাদের সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ।  ‘সেই রাতের কথা বলতে এসেছি’- প্রামাণ্যচিত্রটিরও আমি সেন্সর সার্টিফিকেট নিয়েছিলাম ২০১১ সালে। যদিও ছবিটির প্রিমিয়ার হয়েছিল ২০০১ সালের ২৫ মার্চ রাতে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে। কিন্তু এরপরে নানা জটিলতার কারনে আর সেন্সর পাওয়া যায়নি ছবিটির জন্য। অথচ, সেন্সর ছাড়াই এই প্রামাণ্যচিত্রটি বাংলাদেশের মানুষের কাছে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমাদৃত হয়েছে। লাভ করেছে বেশ ক’টি আন্তর্জাতিক পুরষ্কার।No automatic alt text available.

অবশ্য প্রামাণ্যচিত্রের ক্ষেত্রে সেন্সর সার্টিফিকেট নেওয়াটা এখনো ‘অতি-আবশ্যক’ নয়! তারপরেও আমার এ ধরণের প্রামাণ্যচিত্রগুলো যেহেতু ন্যাশনাল ইস্যুকে কেন্দ্র করেই নির্মিত, সেহেতু পারতপক্ষে আমি সেন্সর সার্টিফিকেট এবং কপিরাইট সার্টিফিকেট নিয়েই রেখে দেই। এতে যে কোন আইনী জটিলতা থেকে মুক্ত থাকা যায় (আপাতত)!

গত ২২ মে, ২০১৭ তারিখে প্রামাণ্যচিত্র ‘গণ আদালতের’ ‘কপিরাইট’ সার্টিফিকেটও লাভ করেছি নির্জলা। আজ মিললো ‘গণ আদালতের সেন্সর সার্টিফিকেট’। ‘সেই রাতের কথা বলতে এসেছি’র কোন কপিরাইট সার্টিফিকেট আমি নেইনি। অবশ্য বর্তমানে এই প্রামাণ্যচিত্রটির কপিরাইট আমার হাতে নেইও বটে! এই প্রামাণ্যচিত্রের কপিরাইট বর্তমানে ইমপ্রেস টেলিফিল্মস-এর। ‘সেই রাতের কথা বলতে এসেছি’র কপিরাইট আমি বাণিজ্যিকভাবে ইমপ্রেস টেলিফিল্মস তথা চ্যানেল আই-এর কাছে হস্তান্তর করেছি বছর দুই আগে।

আগ্রহী বন্ধুদের জন্য প্রামাণ্যচিত্র ‘গণ আদালত’-এর একটি সারসংক্ষেপ নিচে দিয়ে দিচ্ছি।

১৯৯২ সালে ২৬ মার্চ।
একাত্তরের নরঘাতক গোলাম আজমের প্রতিকী বিচার হিসেবে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে যে গণ আদালত অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তার ধারণকৃত কিছু ফুটেজ নিয়ে এ প্রামাণ্যচিত্রের যাত্রা শুরু।

১৯৭২-এ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের যে বিচারকাজ শুরু করেছিলেন সেটা ২০১৬-তে এসে পূর্ণতা লাভ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে। বিরানব্বই-এর ‘গণ আদালত’ প্রকৃতপক্ষে বাহাত্তরে শুরু হওয়া যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকাজের ধারাবাহিকতায় একটি সময়োপযোগী সাহসী প্রতিবাদ।

ওই প্রতিবাদ ছিল বাংলাদেশের সামাজিক এবং রাজনৈতিক বাস্তবতায় একটি বড়ো টার্নিং পয়েন্ট। বাহাত্তর থেকে দু’হাজার ষোল পর্যন্ত বিস্তৃত এই পটভূমিতেই নির্মিত হয়েছে এই প্রামাণ্যচিত্র- ‘গণ আদালত’। }

 

Check Also

শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২

দেবাশীষ বিশ্বাসের শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২

মিডিয়া খবর :- রবিবার পিয়াংকা শুটিং স্পটে দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ-২’ সিনেমার মহরত অনুষ্ঠিত হয়ে …

মুখ ও মুখোশ

আসছে মুখ ও মুখোশ

মিডিয়া খবর :- গোলাম মোস্তফা শিমুলের চলচ্চিত্র মুখ ও মুখোশ সেন্সরে ১০ মাস আটকে ছিল, আপিলের পর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *